বুধবার ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ০১:০৯

ফ্রাঙ্কলিনের বজ্রবিদ্যুৎ আবিষ্কার

Published : 2017-06-14 22:21:00
বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন ১৭০৬ সালের ১৭ জানুয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বজ্রনিরোধক দণ্ড, বাইফোকাল লেন্স, ফ্রাঙ্কলিনের চুলা, অডোমিটার, ফ্রাঙ্কলিন হারমোনিকা ইত্যাদি আবিষ্কার করেন। ১৭৪৭ সালে তাঁর প্রচারিত ধনাত্মক ও ঋণাত্মক বিদ্যুত্ মতবাদ উচ্চ প্রশংসিত হয়। ১৭৫১ সালে তিনি রাজনীতিতে যোগ দেন। আমেরিকার স্বাধীনতা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন তিনি। ১৭৫২ সালের ১৫ জুন ফ্রাঙ্কলিন বজ্রবিদ্যুত্ আবিষ্কার করেন।
মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি দ্য নিউ ইংল্যান্ড কারেন্ট নামে একটি সাময়িকী প্রকাশ করেন। ১৭৮৫-১৭৮৮ সাল পর্যন্ত তিনি পেনসিলভানিয়ার গভর্নর ছিলেন। জীবনের শেষ দিকে তাঁর দাসদের মুক্ত করে দেন। আমেরিকার মুদ্রা, শহর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন সময়ে তাঁর নাম সচিত্র মুদ্রিত হয়েছে। ফ্রাঙ্কলিন ১৭৩১ সালে ফিলাডেলফিয়া পাবলিক লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৭৯০ সালের ১৭ এপ্রিল তিনি মারা যান।
বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের বজ্রবিদ্যুত্ আবিষ্কার নিয়ে একটি মজার গল্প আছে। আকাশের চমকানো বিদ্যুত্ আর আমাদের ঘরে উত্পাদিত বিদ্যুত্ যে একই জিনিস, তা জানতেন না তখনকার বিজ্ঞানীরা। বেঞ্জামিন প্রমাণ করে দেখান যে, আকাশের চমকানো বিদ্যুত্ আর ঘরে তৈরি করা বিদ্যুত্ একই জিনিস। ১৭৫২ সালের ১৫ জুন তিনি প্রচণ্ড এক ঝড়ো বাতাসে বিপজ্জনক এক পরীক্ষা করে বসলেন। সেদিন রাতে প্রবল বাতাসের সঙ্গে সঙ্গে চলছিল বৃষ্টি। তিনি সেদিন উড়িয়ে দিলেন রেশমি কাপড়ের তৈরি এক ঘুড়ি। ঘুড়ির যে সুতা সেখানেও ব্যবহার করলেন রেশমি সুতা। সুতার শেষ মাথায় বেঁধে দিলেন ধাতুর তৈরি এক চাবি। আর চাবিটা ছিল তাঁর হাতের কাছে। রেশমি সুতা নেওয়ার কারণ, রেশমি কাপড় ইলেকট্রন পরিবহন করতে পারে ভালো। বৃষ্টির জলে ভিজে পরিবহন ক্ষমতা গেল বেড়ে। আকাশে বিদ্যুত্ চমকানোর সঙ্গে সঙ্গে সে বিদ্যুত্ ভেজা সুতো বেয়ে নেমে এল চাবির মাঝে। চাবির মধ্যে বয়ে গেল প্রবল বিদ্যুতের ঝলক। ভাগ্যবশত বেঞ্জামিন বেঁচে গেলেও সেদিন দুজন মারা গিয়েছিল।