সোমবার ২২ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৪:৩৪

ঢাকা জাদুঘর থেকে জাতীয় জাদুঘর

Published : 2017-06-12 21:49:00
বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জাদুঘর ও সংগ্রহশালা। এটি বাংলাদেশের ঐতিহাসিক, প্রত্নতাত্ত্বিক, নৃতাত্ত্বিক, শিল্পকলা ও প্রাকৃতিক ইতিহাস সম্পর্কিত নিদর্শনাদি সংগ্রহ, সংরক্ষণ, প্রদর্শন ও গবেষণার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান। ব্রিটিশ শাসনামলে ১৯১৩ সালে ঢাকা জাদুঘর নামে এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। বর্তমানে রাজধানী ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্র শাহবাগে ৮.৬৩ একর জমির ওপর একটি চারতলা ভবনে জাদুঘরটি অবস্থিত।
এ জাদুঘরে ৪৪টি প্রদর্শনী কক্ষ, তিনটি অডিটরিয়াম, একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার ও দুটি অস্থায়ী প্রদর্শনী কক্ষ রয়েছে। এ ছাড়া জাতীয় জাদুঘরের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে চারটি শাখা জাদুঘর। ব্রিটিশ শাসনামলে ১৮৫৬ সালে ‘দি ঢাকা নিউজ’ পত্রিকায় প্রথম ঢাকায় একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে সংবাদ প্রকাশিত হয়। কিন্তু উনিশ শতকে জাদুঘর প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে তেমন কোনো অগ্রগতি হয়নি। ১৯০৫ সালের বঙ্গভঙ্গ ঢাকায় জাদুঘর স্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি করে।
বঙ্গভঙ্গের পর ঢাকাকে নতুন প্রদেশ-পূর্ববঙ্গ ও আসামের রাজধানী করা হলে শিলং কেবিনেটের মুদ্রাগুলো ঢাকায় স্থানান্তরের ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এই সুযোগে সরকারি মুদ্রাবিশারদ এইচ. ই স্টেপলটন ঢাকায় একটি জাদুঘর স্থাপনের জন্য জনশিক্ষা পরিচালকের কাছে প্রস্তাব উত্থাপন করেন। ১৯০৯ সালে স্টেপলটনের প্রস্তাব সরকারি পর্যায়ে আলোচিত হলে গভর্নর স্যার ল্যান্সলট হেয়ার প্রস্তাবিত জাদুঘরের জন্য একটি স্থান নির্বাচনের নির্দেশ দেন। তবে ১৯১১ সালে বঙ্গভঙ্গ রহিত হওয়ায় সরকারি উদ্যোগে ঢাকায় জাদুঘর স্থাপনের প্রচেষ্টা থেমে যায়। ১৯১২ সালের ২৫ জুলাই বাংলার তত্কালীন গভর্নর লর্ড কারমাইকেল ঢাকায় এলে বিশিষ্ট নাগরিকরা এখানে একটি জাদুঘর স্থাপনের দাবি জানান। তিনি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার জন্য ২,০০০ রুপি মঞ্জুর করেন। ১৯১৩ সালের ৫ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে জাদুঘর স্থাপনের জন্য সরকারি অনুমোদন গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়। ওই বছরের ৭ আগস্ট লর্ড কারমাইকেল ঢাকা জাদুঘরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ১৯১৪ সালের ৬ জুলাই নলিনীকান্ত ভট্টশালীকে জাদুঘরের কিউরেটর নিযুক্ত করা হয়। ১৯১৪ সালের ২৫ আগস্ট ঢাকা জাদুঘর সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়। তখন জাদুঘরের মোট নিদর্শনের সংখ্যা ছিল ৩৭৯। প্রথমে তত্কালীন সচিবালয়ের (বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল) একটি কক্ষ জাদুঘরের নিদর্শন সংরক্ষণের জন্য নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু জাদুঘরের নিদর্শন সংখ্যা ক্রমেই বাড়তে থাকলে স্থান সঙ্কুলান না হওয়ায় ১৯১৫ সালের জুলাই মাসে জাদুঘরটি নিমতলীতে অবস্থিত ঢাকার নায়েবে নাজিমদের বারোদুয়াারি ভবনে সরিয়ে নেওয়া হয়। ১৯৮৩ সালের ১৩ জুন ঢাকা জাদুঘরকে জাতীয় জাদুঘর হিসেবে ঘোষণা করে শাহবাগের নিজস্ব ভবনে স্থানান্তর করা হয়।