বৃহস্পতিবার ২৫ মে, ২০১৭, বিকাল ০৪:৩৬

ভুল চিকিত্সায় মৃত্যু: দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিন

Published : 2017-05-19 22:00:00, Count : 39
রাজধানীর গ্রিন রোডের সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভুল চিকিত্সায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ছাত্রীর নাম আফিয়া জাহান চৈত্রী। তার সহপাঠীদের বক্তব্য থেকে জানা গেছে, আফিয়া কয়েকদিন থেকে জ্বরে ভুগছিলেন। বুধবার জ্বর বাড়লে তাকে সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানকার চিকিত্সকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তার ক্যানসার হয়েছে এবং ক্যানসার শেষ পর্যায়ে রয়েছে। সেই হিসেবে তাকে ক্যানসারের ওষুধ প্রয়োগ করা হয়। বৃহস্পতিবার অবস্থা বেগতিক হলে আফিয়াকে কেবিন থেকে আইসিইউতে পাঠানো হয়। তখন চিকিত্সকরা জানান, তার ক্যানসার হয়নি, ডেঙ্গু জ্বর হয়েছে। চিকিত্সকরা প্রথমে ক্যানসার ও পরে ডেঙ্গু জ্বরের ওষুধ প্রয়োগ করে আফিয়াকে হত্যা করেছে বলে সহপাঠী ও স্বজনরা অভিযোগ করেন। আফিয়ার মৃত্যুর খবর পেয়ে তার সহপাঠীরা হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আফিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর হাসপাতালের এক পরিচালক ও আট চিকিত্সকের বিরুদ্ধে ধানমণ্ডি থানায় মামলা করেছেন। পত্রিকান্তরে খবর বেরিয়েছে, এর মধ্যেই পুলিশ এক পরিচালক ও এক ডাক্তারকে গ্রেফতার করেছে।
ভুল চিকিত্সা এবং ডাক্তারের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর ঘটনা অনেক সময়ই ঘটে থাকে। চিকিত্সাসেবা পেশাটি অন্য যেকোনো পেশা থেকে আলাদা। শুধু অর্থ উপার্জন এ পেশার মুখ্য উদ্দেশ্য হতে পারে না। আর এ পেশার সঙ্গে মানুষের জীবন-মরণের বিষয়টি জড়িত। রোগী ডাক্তারের কাছে অনেক প্রত্যাশা নিয়ে আসে। শুধু ছকে বাঁধা দায়িত্ব পালনই নয়, রোগী ডাক্তারের কাছে বাড়তি মনোযোগও আশা করে। কিন্তু ডাক্তারদের যান্ত্রিক ব্যবহার রোগীকে আশাহত করে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, বাংলাদেশ চিকিত্সা ক্ষেত্রে অনেকদূর এগিয়েছে। সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি দেশে বেসরকারি পর্যায়েও অনেক হাসপাতাল-ক্লিনিক গড়ে উঠছে। অনেকগুলো বিশেষায়িত হাসপাতালে মানুষ চিকিত্সাসেবা পাচ্ছে। দেশের ডাক্তারদের মেধা-দক্ষতা নিয়েও কোনো প্রশ্ন নেই। আধুনিক চিকিত্সার ব্যাবস্থাও রয়েছে। তারপরও দুঃখজনক সত্য হচ্ছে, বিপুল সংখ্যক রোগী চিকিত্সার জন্য বিদেশে চলে যাচ্ছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, দেশের চিকিত্সাকেন্দ্র এবং ডাক্তারদের অর্থ উপার্জনের যান্ত্রিক মানসিকতা। চিকিত্সায় টাকার বিষয়টি থাকবে, কিন্তু ডাক্তার এবং হাসপাতালগুলোর পক্ষ থেকে আন্তরিক সেবার বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ।
গ্রিন রোডের সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভুল চিকিত্সায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনাটি দুঃখজনক। এই ঘটনার জের ধরে হাসপাতালে ভাঙচুরের ঘটনাও অনভিপ্রেত। ভুল চিকিত্সায় শিক্ষার্থী মৃত্যুর যে অভিযোগ উঠেছে, এর যথাযথ তদন্ত হওয়া দরকার। কারও গাফিলতি প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। যাদের হাতে রোগীদের সেরে ওঠা নির্ভর করে, অর্থাত্ ডাক্তাররা অধিকতর দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবেন, এটাই সবার প্রত্যাশা।