বুধবার ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮, সন্ধ্যা ০৭:০৯

চিত্র-বিচিত্র

Published : 2017-05-09 10:44:00
বিমানবন্দর বলতে আমরা বুঝি সুরক্ষিত কোনো স্থান, যেখানে বিমান
ওঠানামা করে। পৃথিবীর অনেক দেশেই সুন্দর ও নিরাপদ বিমানবন্দর রয়েছে।
কিন্তু কিছু কিছু বিমানবন্দর আছে, যেগুলো সাধারণ বিমানবন্দর থেকে
আলাদা। এমনই কিছু বিমানবন্দর নিয়ে আজকের চিত্র-বিচিত্র

আগাটি বিমানবন্দর
আগাটি বিমানবন্দরটি কেরেলার লক্ষ্মী দ্বীপের কেন্দ্র শাসিত একটি ছোট দ্বীপ। এটি ভারতের মূল ভূখণ্ড থেকে ৪৫০ কিমি ভেতরে আরব সাগরে অবস্থিত। ৭.৬ কিমি লম্বা এ দ্বীপটিতে প্রায় সাড়ে সাত হাজার মানুষের বাস। আর এই দ্বীপেই রয়েছে একটি বিমানবন্দর, যার নাম আগাটি বিমানবন্দর। বিমানবন্দরটি দ্বীপের যে স্থানে তৈরি করা হয়েছে, দেখে মনে হতে পারে সাগরের মাঝে ভাসছে। কারণ, রানওয়ের চারপাশে মাত্র ৪০ গজের মাধ্যেই রয়েছে আরব সাগর। ১৯৮৭ সালে প্রথমবারের মতো এখানে বিমানবন্দর নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। ১৬ এপ্রিল ১৯৮৮ সালে এর রানওয়ে নির্মাণকাজ শেষ হয়। ২০০৬ সালে নির্মাণ করা হয় এয়ার ট্রাফিক টাওয়ার, টার্মিনাল বিল্ডিং ইত্যাদি। বর্তমানে এটি পরিচালনা করছে ভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

জিব্রাল্টার বিমানবন্দর
জিব্রাল্টার বিমানবন্দরটি মরক্কো ও স্পেনের মধ্যবর্তী ছোট ব্রিটিশ উপনিবেশ জিব্রাল্টারে অবস্থিত। আমরা সাধারণত দেখে থাকি কোনো ট্রেন চলার সময় রাস্তায় ক্রসিং তৈরি করা হয় অথবা ব্যস্ত রাস্তায় দুই দিকের যানবাহন ক্রস করার সময় ক্রসিং ব্যবহার করা হয়। কিন্তু জিব্রাল্টার বিমানবন্দরের রানওয়েটি তৈরি করা হয়েছে রাস্তার ওপর, যেখানে কোনো বিমান নামার সময় দুই পাশের রাস্তা বন্ধ করে রানওয়ের কাজে ব্যবহার করা হয়। রানওয়েটি এভাবে তৈরির কারণ দ্বীপ দেশটিতে বেশিরভাগ জায়গা জুড়েই রয়েছে পাহাড়। সমতল জায়গার অভাবে এখানেই রানওয়ে তৈরি করা উত্কৃষ্ট বলে বিবেচনা করা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তৈরি করা এই বিমানবন্দরে এখনও ব্রিটিশ রয়্যাল সার্ভিসের বিমানগুলো নিয়মিত ওঠানামা করে।

বরফ বিমানবন্দর
বরফ রানওয়ে বিমানবন্দরটি এন্টার্কটিকা মহাদেশে অবস্থিত। আমরা সবাই জানি এ মহাদেশটি সম্পূর্ণ বরফে আচ্ছন্ন। আর এই বরফের ওপরই তৈরি করা হয়েছে বিমানবন্দর, যেখানে সি-১৩০ ও সি-১৭-এর মতো বড় বিমান ওঠানামা করে। অবশ্য কোনো যাত্রী আনা-নেওয়ার কাজে বিমানবন্দরটি ব্যবহার হয় না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সেখানে অবস্থানরত গবেষণা কাজে কর্মরত কর্মীদের রসদ সরবরাহের কাজে বিমানবন্দরটি ব্যবহার হয়ে থাকে।