মঙ্গলবার ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭, রাত ০২:২১

রামুতে মিলনমেলা ‘স্বর্গপুরী’

Published : 2017-04-21 23:18:00
মনতোষ বেদজ্ঞ, কক্সবাজার: রামু উপজেলার উত্তর মিঠাছড়ি প্রজ্ঞামিত্র বনবিহারে ঐতিহ্যবাহী স্বর্গপুরী উত্সব ও বুহ্যচক্রমেলায় হাজারো মানুষের মহাসম্মিলন ঘটেছে। গতকাল ভোর থেকে রাত পর্যন্ত এই উত্সবে অংশ নেয় হাজারো বৌদ্ধ পুণ্যার্থী। উত্সবে অংশ নেয় অন্য সম্প্রদায়ের মানুষও। ফলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মিলনমেলায় পরিণত হয় এই উত্সব।
জানা গেছে, আড়াইশ’ বছরের পুরনো এই বৌদ্ধবিহারে ৩২ বছর আগে তত্কালীন বিহার অধ্যক্ষ প্রজ্ঞামিত্র মহাথের রামুতে প্রথম ‘স্বর্গপুরী উত্সব’ প্রচলন করেন। ২০০৭ সালে প্রজ্ঞামিত্র মহাথেরের প্রয়াণের পর তার প্রধান শিষ্য সারমিত্র মহাথের বিহারের অধ্যক্ষের দায়িত্ব অর্জন করেন এবং গ্রামবাসীর সহযোগিতায় স্বর্গপুরী উত্সব আয়োজন অব্যাহত রাখেন। স্বর্গপুরী অনুষ্ঠান রামুতে প্রথম এবং একমাত্র উত্সব। এ বছর ৩২তম এই উত্সবে কক্সবাজার জেলার রামু, উখিয়া, টেকনাফ, হ্নীলা, মহেশখালী, চৌফলদণ্ডী, চকরিয়া, পার্বত্য বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি, লামা, আলীকদম ও খাগড়াছড়ি এবং চট্টগ্রামের পটিয়া, রাউজান, রাঙ্গুনিয়াসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে বৌদ্ধ পুণ্যার্থীরা অংশ নিয়েছে। রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রাচীন এই অঞ্চলের স্বর্গপুরী উত্সবে শত শত উপজাতি বৌদ্ধ পুণ্যার্থীরা তাদের ঐতিহ্যময় কাপড় পরে অংশ নেয়। বৈচিত্র্যময় পোশাকে তাদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো।
প্রজ্ঞামিত্র বনবিহার অধ্যক্ষ সারমিত্র মহাথের জানান, প্রতিবছরের মতো বাংলা নববর্ষের প্রথম শুক্রবার মহাসমারোহে স্বর্গপুরী উত্সবের আয়োজন করা হয়েছে। ভোরে গ্রাম ঘুরে এসে বুদ্ধ পূজার মাধ্যমে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। কারুশিল্পী প্রবীণ বড়ুয়া তার গ্রাম উত্তর মিঠাছড়ির তরুণদের নিয়ে প্রতিবছরের মতো এ বছরও নির্মাণ করেছেন উত্সবে মূলস্তম্ভ স্বর্গপুরী মন্দির।
রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের সহকারী পরিচালক প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষু জানান, মানুষ মূলত জীবদ্দশায় যে কর্ম করে, সে কর্ম অনুযায়ী বিভিন্ন কুলে তার জন্মান্তর ঘটতে পারে। স্বর্গপুরী উত্সবের মাধ্যমে এমন ধারণা দেওয়া হয়। সংসারে মানুষ জন্ম-মৃত্যুর গোলকধাঁধায় পড়ে ভবচক্রে ঘুরতে ঘুরতে কখনও স্বর্গও লাভ করতে পারে। কিন্তু সেখান থেকেও নির্দিষ্ট একটা সময়ের
পরে তাকে চ্যুত হতে হয়। নিজ কর্মগুণে, কর্মদোষে মানুষ বিভিন্ন কুলে জন্মগ্রহণ করছে। এমন বৌদ্ধিক ধারণা থেকেই রামুতে স্বর্গপুরী উত্সব অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।