মঙ্গলবার ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮, রাত ১১:৪৮

ট্রাম্প প্রশাসনের সাথে আলোচনায় বসতে অধীর রাশিয়া

Published : 2017-03-13 14:49:00

অনলাইন ডেস্ক : রুশ সরকারের একজন মুখপাত্র রোববার (১২ মার্চ) জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের সাথে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের কোন উন্নতি হয়নি। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন তার সরকার যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া সম্পর্ক উন্নত করতে আগ্রহী। 

সিএনএনের জিপিএস অনুষ্ঠানে রোববারে এক সাক্ষাতকারে পেসকভ বলেছেন, "আমরা অবশ্যই আশা করতে পারি আমাদের যোগাযোগের গভীরতা আগের চাইতে অনেক বাড়বে। আমরা একসাথে বসব এবং আলোচনা করব। কারণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অনেক ক্ষেত্রেই আমরা থেমে আছি।" তিনি আরো বলেন, "রাশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশের আলোচনায় না বসাটা অগ্রহণযোগ্য। বিশেষ করে বৈশ্বিক এবং আঞ্চলিক সমস্যা যেখানে বেড়েই চলেছে।"

চলতি বছরের প্রথমদিকে ট্রাম্প এবং রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তাদের সম্পর্ক উন্নয়ন এবং ইসলামিক জঙ্গী সংগঠন আইএসের বিরুদ্ধে একসাথে লড়াই চালানোর জন্য সম্মত হয়েছিল বলে ক্রেমলিন থেকে জানানো হয়। সিএনএনের ওই সাক্ষাতকারে পেসকভ দ্বিপক্ষীয় আলোচনা অনুষ্ঠানের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ জানান। 

পেসকভ বলেন, "ট্রাম্প যেসব বিষয়ে রাশিয়ার সাথে দ্বিমত পোষণ করেন সেগুলো তিনি লুকাচ্ছেন না তবে আলোচনায় বসার জন্য তিনি যথেষ্ট প্রগতিশীল। অবস্থানের তুলনা না করে আমাদের যেসব বিষয়ে মতের মিল রয়েছে সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। একই সাথে আমাদের আলোচনায় বসার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। দুর্ভাগ্যবশত কাঙ্খিত এ আলোচনা কবে নাগাদ শুরু হবে সে বিষয়ে কোন ধারণাই আমাদের নেই।"  

পেসকভ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়টি নিয়েও কথা বলেন। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এখনও নির্বাচনে ট্রাম্পের অপ্রত্যাশিত জয়ের সাথে রাশিয়ার হ্যাকিংয়ের কোন প্রভাব আছে কিনা খতিয়ে দেখছে। যাইহোক না কেন পেসকভ এই বিষয়টিকে 'হিস্টিরিয়া' রোগ বলে আখ্যায়িত করেছেন। তার মতে রুশ হস্তক্ষেপের বিতর্ক কারণে দুইদেশের মধ্যে উষ্ণ সম্পর্ক স্থাপনে অন্তরায় হয়ে দাড়িয়েছে।   

পেসকভ বলেন, "আমরা একে ভবিষ্যত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক স্থাপনের বিরুদ্ধে সত্যিকার বিপদসংকেত হিসেবে দেখছি এবং আগ্রহের সাথে এই 'হিস্টিরিয়া' রোগের যৌক্তিক সমাপ্তির অপেক্ষা করছি।"   

সম্প্রতি ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিনকে রুশ রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাতের বিষয়টি সহকর্মীদের কাছে গোপন রাখার অভিযোগে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়। পরবর্তীতে অ্যাটর্নি জেনারেলও নির্বাচনকালীন দুবার রুশ রাষ্ট্রদূতের সাথে সাক্ষাতের অভিযোগে বিতর্কিত হন। 

রোববার সিএনএনের অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের অন্যতম সমালোচক রিপাবলিকান সিনেটর জন ম্যাককেইন রাশিয়া সাথে সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়ে সতর্ক হওয়ার আহবান জানিয়েছেন। ম্যাককেইন বলেছেন, "রাশিয়া এবং ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে সম্পর্কের বিষয়টি অনেক দিকে থেকেই পুর্নবিবেচনা করা উচিত এবং আমি মনে করি মার্কিন নাগরিকরা তাদের অনেক প্রশ্নের জবাব এখনও পায়নি।" সূত্র: সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট