বুধবার ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৫:১০

পেট্রোল বোমা মেরে গণতন্ত্র রক্ষা করা যায় না: ওবায়দুল কাদের 

Published : 2017-04-05 21:37:00
অনলাইন ডেস্ক: পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ পুড়িয়ে যারা গণতন্ত্র রক্ষা করতে চায় তারা গণতন্ত্রের চরম শত্রু। তারাই ভারতের সাথে অবিশ্বাসের দেয়াল তুলে বাংলাদেশকে উন্নয়ন থেকে পিছিয়ে রেখেছিলেন। বিদ্বেষের হাত প্রসারিত করে বন্ধুত্ব হয় না। এ সব কথা বলেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

বুধবার বিকেলে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার উদ্যোগে হল সম্মেলন, নবীন বরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠান শেষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ওবায়দুল কাদের। 

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, 'বুয়েট, ঢাকা মেডিকেল কলেজ এ সকল বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনাটা নম্বর ওয়ান। রাজনীতিতে গদবাধা বক্তব্য না দিয়ে নতুন চিন্তায়, নতুন ভাবনায়, নতুন অবকাঠামোতে ঢেলে সাজাতে হবে। 

শুধু কথামালার চাতুরী দিয়ে রাজনীতি চলবে না। ছাত্র রাজনীতিকে আকর্ষণীয় করতে হলে মেধাবীদের ছাত্র রাজনীতিতে আসতে হবে। মেধাবীরা যদি ছাত্র রাজনীতিতে না আসে, তাহলে জাতীয় রাজনীতি মেধাশূন্য হয়ে যাবে।

বিএনপি কে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেছেন, 'আমাদের ভারত প্রীতিও নেই, ভারত ভীতিও নেই। আমাদের ক্ষমতার উৎস বাংলাদেশের জনগণ। আমাদের ক্ষমতায় তারাই বসাবে।  ভারতও নয়, আমেরিকাও না।'

'গোলামীর চুক্তি আওয়ামী লীগ করে না। আপনাদেরকে আগামী নির্বাচনে অংশ নিতেই হবে, তা না হলে নিবন্ধন বাতিল হবে। আর একটা কথা, জঙ্গীবাদকে মদদ দিবেন না, শেখ হাসিনাকে ঠেকাতে গিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নকে ঠেকাবেন না।'

বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শুভ্রজ্যোতি টিকাদার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ কনক।

উক্ত অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, অধ্যাপক আব্দুল জব্বার খাঁন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ।

এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি কাজী এনায়েত, আমিনুল ইসলাম,ইমতিয়াজ বুলবুল বাপ্পী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহিদুল ইসলাম শাহেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম এহতেশাম, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহজাদা, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ইমরান খান,  বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।