মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ১২:০৯

ক্রসফায়ারের গল্পকাহিনী এখন আর মানুষ বিশ্বাস করে না : রিজভী

Published : 2017-04-02 14:06:00, Updated : 2017-04-02 22:37:54

অনলাইন প্রতিবেদক : বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ক্রসফায়ারের নামে বিচারবর্হিভূত হত্যার গল্পকাহিনী এখন আর মানুষ বিশ্বাস করে না। সরকার সারাদেশকে এভাবে চক্রান্তের বেড়াজালে বেঁধে গণতন্ত্র, ব্যক্তি অধিকার ও মানুষের মর্যাদাকে হরণ করেছে তাতে ক্রসফায়ারের ঘটনাকে মানুষ এখন গল্প বলে মনে করে।

রোববার (২ এপ্রিল) দুপুরে নয়াপল্টনের বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মানুষকে নিজ গৃহ থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে অদৃশ্য করা, গুম অপহরণ ও ক্রসফায়ার সহনীয় করা যদি সরকাররের নীতি হয়, তহালে উগ্রবাদী জঙ্গিগোষ্ঠি। আধিপত্য বিস্তার করার জন্য রাষ্ট্র ও সমাজের নানা ফাঁক দিয়ে তারা বিষাক্ত ছোবল দিতে উদ্যত হয়।

রিজভী বলেন, গত দুই সপ্তাহে ভিনাইদা, চট্রগ্রাম, রাজশাহী থেকে প্রায় ১০ জনের অধিক মানুষকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। গত মার্চ মাসে মানবাধিকার সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী ক্রসফায়ারের নামে নামে হত্যা করা হয়েছে ২১ জনকে।

তিনি আরও বলেন, ‘ক্রসফায়ারের নামে বিচারবর্হিভূত হত্যার গল্পকাহিনী এখন আর মানুষ বিশ্বাস করে না। সরকার সারাদেশকে এভাবে চক্রান্তের বেড়াজালে বেঁধে গণতন্ত্র, ব্যক্তি অধিকার ও মানুষের মর্যাদাকে হরণ করেছে তাতে ক্রসফায়ারের ঘটনাকে মানুষ এখন গল্প বলে মনে করে।

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম প্রতিরক্ষা চুক্তি নিয়ে এক স্বাক্ষাতকারে অনেক কথার মধ্যে একটি কথা বলেছেন, যে যদি বাংলাদেশ ও ইন্ডিয়ার মধ্যে নিরাপত্তার হুমকি দেখা দেয়, তাহলে দু’দেশ একসাথে সহযোগিতা করবে। আমি অত্যন্ত সুষ্পষ্টভাবে বলতে চাই-আমাদের সেনাবাহিনী যথেষ্ট শক্তিশালী এবং সাহসী। বাংলাদেশের নিরাপত্তার জন্য আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীই যথেষ্ট। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জনমতকে তাচ্ছিল্য করে ভারতের সাথে প্রতিরক্ষা চুক্তি করতে এগিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী-তার রাজনীতি, তার গরিমা, তার কর্তৃত্বসহ সবকিছু দেশের সার্বভৌমত্ব ও জনসাধারণের জন্য হুমকি। তিনি যেমন দেশ থেকে গণতন্ত্রকে বিদায় করেছেন তেমনি প্রতিরক্ষা চুক্তির নামে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় স্বাধীনতার ‘স্টেট’স ফিউনেরেল’ করতে উদ্যোগী হয়েছেন। এটি বাস্তবায়িত হলে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটির পৃথিবীর মানচিত্রে আর খুঁজে পাওয়া যাবে কীনা সন্দেহ। পার্শ্ববর্তী দেশের সাথে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা চুক্তি এদেশের মানুষ ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করে সর্বশক্তি দিয়ে তা রুখে দিবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যাম ওবায়েদ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, সহ দফতর সম্পাদক মো. মনির হোসেন প্রমুখ।