শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, সকাল ১০:৪৫

শ্রীপুরে গরীবের অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু

সেবা চাইলেই রাত বিরাতে বাড়িতে হাজির অ্যাম্বুলেন্স

Published : 2018-02-06 15:54:00
ছবি : রেজাউল করিম সোহাগ অনলাইন ডেস্ক : উপজেলা সদরের সঙ্গে বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের মানুষের যোগাযোগ একেবারেই ক্ষিন। নেহায়েত প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া উপজেলা শহরে আসতে চায় না সাধারণ মানুষ। তবে অসুখ বিসুখে ভিন্ন চিত্র।

উপজেলার সীমান্তবর্তী অঞ্চলের মানুষসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের উন্নত চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের বিকল্প নাই। তবে সে সেবা পেতে রাত বিরাতে রোগিদের হাসপাতালে আনতে যানবাহনের অপ্রতুলতায় সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হয় রোগির স্বজনদের।

সে দুর্ভোগ থেকে রেহায় দিতে সরকার গরীবের অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করেছে গাজীপুরের শ্রীপুরের ৮ ইউনিয়নে। দুস্থ মা ও শিশু কিংবা গুরুতর অসুস্থ রোগিদের নিবিঘ্নে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে জরুরি ভিত্তিতে চিকিত্সা সেবা পেতে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা-নেয়ার জন্য চালু করা হয়েছে ‘গ্রামীন অ্যাম্বুলেন্স’নামে এক সেবা। শ্রীপুর উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে আটটি ইউনিয়নে এ অ্যাম্বুলেন্স সেবা দেওয়া হবে।

গতকাল গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড.দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর শ্রীপুরের প্রত্যেকটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট এসব অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর করেছেন। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে সরকারি অ্যাম্বুলেন্স সেবা পাওয়াটা রোগির এবং তার স্বজনদের কাছে বেশ দুরূহ ব্যাপার। সে দুর্ভোগ থেকে গরীব মানুষদের মুক্তি দিতেই এ সেবা চালু করা হলো। 

অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর অনুষ্ঠানে জানানো হয়, জেলা ও উপজেলা শহরের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে প্রত্যন্ত গ্রামের মানুষ অনেক সময় অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহারের সুযোগ পায় না। গ্রামের সেই প্রান্তিক জনগোষ্ঠির কথা চিন্তা করে উপজেলা প্রশাসন থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে অ্যাম্বুলেন্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এসব অ্যাম্বুলেন্স গ্রাম পর্যায়ের দরিদ্র ও অসহায় মানুষ এবং প্রসূতি মায়েদের দ্রুত স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার কাজে ব্যবহৃত হবে।

শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেহেনা আকতার বলেন, প্রতিটি অ্যাম্বুলেন্সে একটি করে মুঠো ফোন নাম্বার (মোবাইল নাম্বার/ হট লাইন) দেওয়া থাকবে। রাত বিরাতে গ্রামের সহজ সরল গরীব মানুষদের জরুরি ভিত্তিতে সহজেই বিভিন্ন হাসপাতালে পৌঁছে দিতে এ অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করা হলো।

চিকিৎসা সেবার প্রয়োজন হলে নাম মাত্র ভাড়ায় হাসপাতালে পৌঁছে দিবে এ অ্যাম্বুলেন্স। ফোন করার সাথে সাথে রোগি পরিবহন সেবায় রোগির বাড়িতে পৌছে যাবে এ সব অ্যাম্বুলেন্স। প্রাথমিক ভাবে প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের সচিব অ্যাম্বুলেন্সগুলো দেখা শোনা করবেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন,  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল জলিল, ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মন্ডল বুলবুল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ ফরিদা জাহান স্বপ্না, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ সোহেল রানা, সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারি, বিভিন্ন ইউপির চেয়াম্যানসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।