সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, সকাল ০৮:১১

তিতুমীরের জন্ম

Published : 2018-01-28 18:33:00
ব্রিটিশবিরোধী বিপ্লবী তিতুমীরের জন্ম ১৭৮২ সালের ২৮ জানুয়ারি। তাঁর প্রকৃত নাম সৈয়দ মীর নিসার আলী। তিনি ওয়াহাবি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। জমিদার ও ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম ও বাঁশের কেল্লার জন্য তিনি ইতিহাসখ্যাত।

তিতুমীর গ্রামের দরিদ্র কৃষকদের সঙ্গে নিয়ে জমিদার এবং ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকতার বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেন। তৎকালীন হিন্দু জমিদারদের অত্যাচারের প্রতিবাদে ধুতির বদলে ‘তাহ্বান্দ’ নামে এক ধরনের বস্ত্র পরিধান করতেন। মুসলমানদের ওপর আরোপিত ‘দাড়ির খাজনা’ এবং মসজিদের করের তীব্র বিরোধিতা করেন। তিতুমীর ও তাঁর অনুসারীদের সঙ্গে স্থানীয় জমিদার ও নীলকর সাহেবদের সংঘর্ষ তীব্রতর হতে থাকে। আগেই তিতুমীর পালোয়ান হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন এবং পূর্বে জমিদারের লাঠিয়াল হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তিনি তাঁর অনুসারীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তোলেন। তিতুমীর ১৮৩১ সালের ২৩ অক্টোবর নারিকেলবাড়িয়ায় বাঁশ এবং কাদা দিয়ে দ্বি-স্তরবিশিষ্ট কেল্লা নির্মাণ করেন। বর্তমান ভারতের চব্বিশ পরগনা, নদীয়া এবং ফরিদপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের অধিকার নিয়ে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।

স্থানীয় জমিদারদের বাহিনী এবং ব্রিটিশ বাহিনী তিতুমীরের কাছে বেশ কয়েকবার পরাজিত হয়। এর মধ্যে বারাসাতের বিদ্রোহ অন্যতম। উইলিয়াম হান্টার বলেন, ওই বিদ্রোহে প্রায় ৮৩ হাজার কৃষকসেনা তিতুমীরের পক্ষে যুদ্ধ করে।

কর্নেল হার্ডিংয়ের নেতৃত্বে ব্রিটিশ সৈন্যরা ভারি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করলে সাধারণ তলোয়ার ও হালকা অস্ত্র নিয়ে তিতুমীর ও তাঁর সৈন্যরা আধুনিক অস্ত্রের সামনে দাঁড়াতে পারেনি। তাঁর বাহিনীর প্রধান গোলাম মাসুমকে ফাঁসি ও বাঁশের কেল্লা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

১৮৩১ সালের ১৪ নভেম্বর তিতুমীর ও তাঁর চল্লিশজন সহচর শহীদ হন।