বুধবার ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮, সন্ধ্যা ০৭:০৬

ভ্রমণপ্রেমীদের পদচারণায় মুখর পর্যটন মেলা

Published : 2017-03-31 23:14:00
নিজস্ব প্রতিবেদক: নবদম্পতি শামীম শাহেদ ও নাজনীন আক্তার। বিয়ে হয়েছে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি। স্বামী চাকরি করেন একটি বেসরকারি ব্যাংকে, স্ত্রী একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে। কর্মস্থলের ব্যস্ততার কারণে এখনও যাওয়া হয়নি হানিমুনে। ব্যস্ততা থাকলেও হানিমুন তো আর বাতিল করা যাবে না। তাই এপ্রিলের ১৪ তারিখে পয়লা বৈশাখের ছুটির সঙ্গে আরও চার দিন ছুটি নিয়েছেন তারা দুজনই, উদ্দেশ্য থাইল্যান্ডে হানিমুনে যাওয়া। এর আগে কখনও দেশের বাইরে যাওয়া হয়নি। তাই কোন দেশে কেমন খরচ, কোন বিমানে গেলে কেমন ভাড়া-সে সম্পর্কেও ধারণা খুব বেশি নেই। সব বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা পেতে কয়েক দিন ধরেই খোঁজ করছিলেন ট্রাভেল এজেন্সির। রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলায় এসে তাদের জানা হয়ে গেছে সবকিছু।
গতকাল পর্যটন মেলার দ্বিতীয় দিনে এসেছিলেন এই দম্পতি। মেলায় আসার উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে চাইলে শামীম শাহেদ বলেন, হানিমুনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ট্রাভেল এজেন্সির খোঁজ করছিলাম। জানতে পারলাম সোনারগাঁও হোটেলে পর্যটন মেলা হচ্ছে। ছুটির দিন থাকায় আজ (গতকাল) মেলায় এসেছি। খুবই ভালো হয়েছে এখানে এসে। কারণ একই ছাদের নিচে অনেকগুলো ট্রাভেল এজেন্সি ও সরকারি-বেসরকারি বিমানের স্টল পেয়েছি। স্টলে স্টলে ঘুরে একটি স্বচ্ছ ধারণা পেয়েছি। একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে নাম এন্ট্রি করিয়েছি, আগামী ১৪ এপ্রিল থাইল্যান্ডে হানিমুনে যাব।
শুধু যে শামীম শাহেদ ও নাজনীন আক্তার দম্পতি এসেছেন তা-ই নয়, তাদের মতো অনেক নতুন দম্পতি থেকে শুরু করে সব বয়সী ভ্রমণপিপাসুরা ভিড় জমিয়েছেন পর্যটন মেলায়। সবারই উদ্দেশ্য-কম খরচে কোথায় ঘুরতে যাওয়া যায় তার খোঁজখবর
নেওয়া। আর গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিন থাকায় ভ্রমণপিপাসুদের আরও বেশি ভিড় দেখা যায়।
গতকাল মেলা প্রাঙ্গণে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন এয়ারলাইন্স ১৫ থেকে ২০ শতাংশ ছাড়ে ঢাকা থেকে ব্যাঙ্কক, সিঙ্গাপুর, কাঠমান্ডু, ইয়াঙ্গুন, দুবাই, আবুধাবি, দাম্মাম, লন্ডন ও কলকাতা যাওয়ার সুযোগ দিচ্ছে। তাছাড়া ট্রাভেল এজেন্সিগুলো অভ্যন্তরীণ ও দেশের বাইরে পর্যটন স্পটগুলোতে বিভিন্ন প্যাকেজের মাধ্যমে ভ্রমণেরও সুযোগ দিচ্ছে। মেলায় হানিমুন ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেলস সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, আমেরিকা ও কানাডায় বিভিন্ন সুবিধাসহ ভ্রমণের সুযোগ দিয়ে অংশ নিয়েছে।
ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পর্যটন মেলায় তারা ভালো সাড়া পাচ্ছেন। গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় সকাল থেকেই মেলা প্রাঙ্গণে আসা শুরু করেন দর্শনার্থীরা। দুপুরের পর দর্শনার্থীদের আগমনে জমজমাট হয়ে ওঠে মেলাস্থল। এ সময় মেলার প্রবেশমুখে দেখা যায় আগন্তুকদের দীর্ঘ লাইন। আয়োজকরা জানান, প্রথম দিনের তুলনায় দর্শক উপস্থিতি অনেক বেড়েছে। ছুটির দিন হওয়ায় অনেকে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে ঘুরতে এসেছেন মেলায়। বুকিংও দিচ্ছেন অনেকে।
ভ্রমণপ্রিয় পর্যটকদের কেউ কেউ এসেছেন এককভাবে। আবার কেউ কেউ পরিবার-পরিজন নিয়ে। দেশি পর্যটকদের পাশাপাশি মেলায় বিদেশিদেরও উপস্থিতি দেখা গেছে। তারাও ঘুরে ঘুরে দেখছেন বিভিন্ন স্টল। জানছেন বিভিন্ন প্যাকেজ কিংবা অফার সম্পর্কে। কেউ কেউ মেলা প্রাঙ্গণেই বুকিং দিচ্ছেন বিশেষ ছাড়ের ভ্রমণ প্যাকেজগুলোতে। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কাছে টানতেই এমন অফার বলে জানান স্টল মালিকরা। এছাড়া মেলায় গ্রাহকদের সেলফি প্রতিযোগিতারও আয়োজন করেছে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিযোগিতায় প্রথম তিন বিজয়ী পাবেন আকর্ষণীয় পুরস্কার।
মেলায় অংশ নিয়েছে গার্ডিয়ান নেটওয়ার্ক নামে একটি প্রতিষ্ঠান। মালয়েশিয়া যেতে আগ্রহীদের জন্য প্রায় পাঁচ ধরনের সেবা দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এর মধ্যে রয়েছে-মালয়েশিয়াতে যারা সেকেন্ড হোম গড়তে চায় তাদের জন্য পরামর্শ থেকে শুরু করে যাবতীয় প্রক্রিয়ায় সহায়তা করা, মালয়েশিয়ায় পড়ালেখা, চিকিত্সা, জমি কেনা এবং ভ্রমণ। মূলত, মালয়েশিয়ায় ভ্রমণের সঙ্গে সম্পৃক্ত সব বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন ধরনের টেকনিক্যাল সহায়তা দিচ্ছে।
গার্ডিয়ান নেটওয়ার্কের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ নয়ন চৌধুরী বলেন, আমরা গ্রাহকদের মালয়েশিয়া ভ্রমণে ভিসা প্রসেসিং থেকে শুরু করে সেখানে বিনিয়োগে সহায়তাসহ বিভিন্ন ধরনের কারিগরি সহায়তা দিই। গ্রাহকদের জন্য রয়েছে হেলথ সার্ভিস, ট্যুর প্যাকেজ, স্টাডি কনসালটেন্সি, বিজনেস ভিসা সুবিধাও।
মেলায় অংশ নেওয়া আরেক প্রতিষ্ঠান হোম ট্যুরস অ্যান্ড ট্র্যাভেলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান রেজওয়ান রহমান বলেন, এবারের মেলায় ছুটির দিনে দর্শনার্থীদের ভিড় ছিল লক্ষণীয়। আগামীকাল (আজ) শেষ দিন আশা করি আরও বেশি দর্শনার্থী আসবে। উল্লেখ্য, ভ্রমণ বিষয়ক পাক্ষিক দ্য বাংলাদেশ মনিটর চতুর্দশবারের মতো এবারের আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলার আয়োজন করেছে। বিমান সংস্থা ‘ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স’ টাইটেল স্পন্সর আর মেলা আয়োজনে পার্টনার হিসেবে সহায়তা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।
বিভিন্ন দেশের ৫০টির অধিক সংস্থা এবারের মেলায় অংশ নিচ্ছে, যার মধ্যে রয়েছে জাতীয় পর্যটন সংস্থা, বিমান সংস্থা, ট্রাভেল ও ট্যুর অপারেটর, হোটেল ও রিসোর্ট, পর্যটন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান, অনলাইন বুকিং-পোর্টাল ও অন্যান্য। অংশগ্রহণকারী সংস্থাগুলো মেলা চলাকালীন দর্শনার্থীদের জন্য হ্রাসকৃত মূল্যে বিমানের টিকেট, আকর্ষণীয় ট্যুর প্যাকেজসহ বিভিন্ন সেবা উপস্থাপন করছে। আজ শেষ দিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ মেলা চলবে। প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে জনপ্রতি ৩০ টাকা।