শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, সকাল ০৯:৫৫

যুক্তরাষ্ট্রে শাটডাউন নিয়ে ভোট

Published : 2018-01-22 12:01:00

অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটররা দেশটিতে শাটডাউনের বিষয়টি নিয়ে এখনও একমত হতে পারেননি। ফলে দেশটিতে শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) মধ্যরাতে থেকে যে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে সেটি অব্যাহত রয়েছে। রোববার (২১ জানুয়ারি) শাটডাউনের বিষয়ে সিনেটের একটি সেশন মুলতবি ঘোষণা করা হয়। তখন এ বিষয়ে ভোটাভুটি সোমবার (২২ জানুয়ারি) দুপুর পর্যন্ত স্থগিতও করা হয়।

শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া শাটডাউন নিয়ে আলোচনায় কোনো অগ্রগতিই হয়নি। উল্টো ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান সিনেটররা এই পরিস্থিতির জন্য একে-অপরকে দুষেছেন। নতুন ওই ব্যয় বাজেটে অভিবাসীদের, যারা ড্রিমার্স নামে পরিচিত, তাদের রাখার ব্যাপারে জোর দিচ্ছেন ডেমোক্রেট সিনেটররা। তবে রিপাবলিকানরা বলছেন সরকারি কার্যক্রম বন্ধ রেখে এ ধরনের কোনো আলোচনা সম্ভব নয়।

তবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই অচলাবস্থা দূর করতে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে ভোট গণনার আহ্বান জানিয়েছেন।  সিনেটের নিয়ম অনুযায়ী ১০০ সদস্য বিশিষ্ট চেম্বারে কোনো বিল পাস হতে প্রয়োজন ৬০ ভোট। তবে সিনেটে বর্তমানে রিপাবলিকানদের সংখ্যা ৫১ জন। তাই এই বাজেট পাস করতে ডেমোক্রেটদের সমর্থন প্রয়োজন।

এদিকে ট্রাম্প ব্যয় বাজেট নিয়ে রিপাবলিকানদের প্রচেষ্টার প্রশংসা করে টুইট করেছেন। ওই টুইট বার্তায় ট্রাম্প লিখেন, আমাদের সেনাবাহিনী ও সীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে রিপাবলিকানদের এই প্রচেষ্টা দেখে ভালো লাগছে। ডেমোক্রেটরা শুধু চাচ্ছে যে, অবৈধ অভিবাসী দিয়ে আমাদের দেশ অনিরাপদ হয়ে উঠুক। যদি এই অচলাবস্থা চলতে থাকে, তাহলে রিপাবলিকানদের উচিত সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া। সাময়িক নয় বরং দীর্ঘ মেয়াদি বাজেটের লক্ষ্যে ভোট দেয়া উচিত রিপাবলিকানদের।

এর আগে ২০১৩ সালে এ ধরনের শাটডাউনের মুখে পড়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। সেবার ওই শাটডাউন ১৬ দিন স্থায়ী হয়েছিল। তবে এবারের শাটডাউন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে বিরল। কেননা এই প্রথম কোনো একটি দল কংগ্রেস ও হোয়াইট হাউজ নিয়ন্ত্রণ করা সত্ত্বেও শাটডাউনের মুখে পড়লো যুক্তরাষ্ট্র। মূলত যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের ব্যয়ের জন্য সিনেট একটি বাজেট পাসে ব্যর্থ হওয়ায় এই শাটডাউন শুরু হয়েছে। সূত্র: বিবিসি