শুক্রবার ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮, সকাল ০৯:৫৬

বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধির গেজেট গ্রহণ করেছেন সুপ্রিম কোর্ট

Published : 2018-01-03 13:00:00, Updated : 2018-01-03 15:24:35

অনলাইন ডেস্ক : নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা-সংক্রান্ত বিধিমালার গেজেট গ্রহণ করে আদেশ দিয়েছেন। বুধবার (০৩ জানুয়ারি) দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, আদালত গেজেটটি গ্রহণ করে আদেশ দিলেও মাজদার হোসেন মামলাটি চলমান রেখেছেন । এ সময় আদালত বলেন, সরকারের প্রণয়নকৃত গেজেটে নিম্ন আদালতের বিচারকদের ওপর আমাদের (সুপ্রিম কোর্টের) কর্তৃত্ব বজায় রয়েছে।

গত ১১ ডিসেম্বর অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরি শৃঙ্খলাবিধিমালার গেজেট প্রকাশ করে সরকার। এরপর ১৩ ডিসেম্বর গেজেটের বিষয়ে আদেশের জন্য দিন নির্ধারণ থাকলেও এ বিষয়ে কোনো আদেশ না দিয়ে ২ জানুয়ারি পরবর্তী দিন নির্ধারণ করে সর্বোচ্চ আদালত। বুধবার এই আদেশের জন্য দিন ধার্য করা হয়।
অধস্তন বিচারকদের চাকরি বিধির গেজেট প্রকাশ নিয়ে অসংখ্যবার সময় নেয় সরকার। এ নিয়ে আদালতকে ক্ষোভ প্রকাশ করতেও দেখা যায়। তবে গত ১৬ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী। ওইদিন বৈঠক শেষে আইনমন্ত্রী গণমাধ্যমকে গেজেট নিয়ে সমঝোতা হওয়ার বিষয়টি জানান। তিনি বলেছিলেন, রাষ্ট্রপতির হুকুম পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা এ গেজেট প্রকাশ করবো।

আদালত সূত্র জানায়, ১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর মাসদার হোসেন মামলায় ১২ দফা নির্দেশনা দিয়ে রায় দেয়া হয়। ওই রায়ের আলোকে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা ছিল। আপিল বিভাগের নির্দেশনার পর ২০১৬ সালের ৭ মে আইন মন্ত্রণালয় একটি খসড়া শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধি প্রস্তুত করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠায়।

ওই বছরের ২৮ আগস্ট এই মামলার শুনানিতে আপিল বিভাগ জানান, শৃঙ্খলা বিধিমালা সংক্রান্ত সরকারের খসড়াটি ছিল ১৯৮৫ সালের সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালার হুবহু অনুরূপ, যা মাসদার হোসেন মামলার রায়ের পরিপন্থি। এরপরই সুপ্রিম কোর্ট একটি খসড়া বিধিমালা করে আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়।