বুধবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮, সকাল ১০:০০

দেশে প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার হ্যান্ডসেট বাজারে আনলো হুয়াওয়ে

Published : 2017-12-28 00:11:00

অনলাইন ডেস্ক : দেশের বাজারে প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার হ্যান্ডসেট উন্মোচন করল হুয়াওয়ে। ‘মেট টেন প্রো’ নামের এ হ্যান্ডসেটটি মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) উন্মোচন করে প্রতিষ্ঠানটি।

হ্যান্ডসেটটির উন্মোচন উপলক্ষ্যে রাজধানীর একটি হোটেলে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে হুয়াওয়ে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসমৃদ্ধ হার্ডওয়্যার কিরিন ৯৭০ চিপসেট ও ইএমইউআই ৮.০-এর সমন্বয়ে তৈরি হয়েছে অত্যাধুনিক এ মুঠোফোনটি। অক্টা-কোর এআরেম কোর্টেক্স সিপিইউ এর পাশাপাশি প্রথমবারের মত ১২ কোরের মালি-জি১২ জিপিইউ এবং এনপিইউ প্রযুক্তি যুক্ত করা হয়েছে হুওয়ায়ে মেট টেন প্রো-তে। প্রায় বেজেলবিহীন এ মুঠোফোনটিতে রয়েছে ছয় ইঞ্চি ফুলভিউ পর্দা এবং এইচআরডি১০ সমর্থিত প্রযুক্তি যা অনায়াসে পরিষ্কার এবং উজ্জ্বল কালার প্রদানে সক্ষম। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন চার হাজার মিলিএম্পিয়ার ব্যাটারির সঙ্গে আছে টিইউভি ফাস্ট চার্জিং সার্টিফিকেট এবং দ্রুত চার্জ হওয়ার প্রযুক্তি যা স্বল্প সময়ে চার্জ হয়ে দীর্ঘসময় সচল রাখবে মুঠোফোনটিকে।

অন্যদিকে সামিলাক্স-এইচ লেন্সের সমন্বয়ে এতে আছে ১২ ও ২০ মেগাপিক্সেলের নতুন লাইকা ডুয়েল ব্যাক ক্যামেরা। কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির রিয়েল টাইম সিন, অবজেক্ট সনাক্তকরণ এবং কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির বিশেষ বুকিহ ইফেক্ট প্রযুক্তি রয়েছে এর ক্যামেরায়।

সব ধরণের ডাটা রাখার জন্য এতে আছে ১২৮জিবি ইন্টারনাল মেমোরি। আর সব কাজ হবে দ্রুতগতির  ছয় জিবি র‍্যামে। আইপি-৬ সনদপ্রাপ্ত মুঠোফোনটি পানি এবং ধূলাবালি প্রতিরোধক।

চলতি বছরের অক্টোবরে জার্মানিতে সর্বপ্রথম মুঠোফোনটি বাজারে আনা হয়। আর মঙ্গলবার বাংলাদেশের বাজারে উন্মোচিত হলেও গ্রাহকরা মুঠোফোনটি হাতে পাবেন ৪ জানুয়ারি থেকে। এর আগে প্রি-বুকিং দিতে পারবেন গ্রাহকেরা। মুঠোফোনটি কিনতে গ্রাহককে খরচ করতে হবে ৮০ হাজার ৯০০ টাকা। অগ্রিম বুকিং দেওয়া গ্রাহকদের জন্য বিশেষ পুরুস্কার থাকবে বলেও অনুষ্ঠানে জানায় প্রতিষ্ঠানটি। হুয়াওয়ের যেকোনো ব্র্যান্ড শপ থেকে অথবা  HWmate10pro লিখে ৬৯৬৯ নাম্বারে এসএমএস করে অথবা ই-কমার্স সাইট পিকাবু ডটকম থেকেও বুকিং দেওয়া যাবে।

অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ডিভাইস বিজনেসের ডেপুটি কান্ট্রি ডিরেক্টর জিয়াউদ্দিন চৌধুরী বলেন, “প্রযুক্তিপ্রেমী বিশ্বে বসবাস করছি আমরা। প্রতিনিয়ত আমরা অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সন্ধানে থাকি, যাতে করে আমাদের দৈনন্দিন জীবন আরও সহজ করে নেওয়া যায়। এসব দিকগুলো মাথায় রেখে আমরা প্রযুক্তিপ্রেমীদের জন্য বিশেষ করে স্মার্টফোনপ্রেমীদের জন্য আগামীর প্রযুক্তি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে নিয়ে এসেছি হাতের মুঠোয়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এখন আর ভার্চুয়াল কোনো ধারণা নয়, বরং আমাদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে আংশিক ব্যবহার্য প্রযুক্তি। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারকারীকে অভিনব অভিজ্ঞতা ও গুরুত্বপূর্ণ সেবাপ্রদান এবং পণ্যের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সক্ষম একটি প্রযুক্তি। হুয়াওয়ে মেট টেন প্রো-তে ব্যবহার করা হয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসমৃদ্ধ নিউরাল নেটওয়ার্ক প্রসেসিং ইউনিট, যা নতুন প্রজন্মের বুদ্ধিমান স্মার্টফোন। বহির্বিশ্বের মতো বাংলাদেশের ক্রেতারাও ফোনটিকে ভালোবাসবে বলে আমি বিশ্বাস করি। ”

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থতি ছিলেন- হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ডিভাইস বিজনেসের কান্ট্রি ডিরেক্টর অ্যারন।

উল্লখ্যে, ২০১২ সালে এরকিসনকে টপকে বিশ্বের সব থেকে বড় টেলিকমিউনিকেশন উপকরণ নির্মাতার স্থান দখল করে নেয় চাইনজি এ প্রতিষ্ঠানটি।