বুধবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ০১:৩০
ব্রেকিং নিউজ

■  ভিসির কার্যালয়ে গেট ভাঙ্গার বিচার হবে: কাদের ■  জয়নাব ধর্ষণ ও হত্যার মূল সন্দেহভাজন গ্রেপ্তার ■  সেনাপ্রধানের বাবা শরিফুল হকের ইন্তেকাল ■  ভেনেজুয়েলায় আগাম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ঘোষণা ■  কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বেসরকারি খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে : প্রধানমন্ত্রী ■  বেসরকারি শিক্ষকদের দ্বিতীয় দিনের মত ক্লাস বর্জন ■  ঢাবি উপাচার্যকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ■  লিবিয়ার বেনগাজিতে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ, নিহত ২৭ ■  জুবায়ের হত্যা মামলা : হাইকোর্টের রায় পড়া শুরু ■  জীবননগরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত ■  বরগুনায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

৩৮তম বিসিএসের প্রিলিতে ইলেকট্রনিক ডিভাইস নিষিদ্ধ

Published : 2017-12-24 14:46:00

অনলাইন ডেস্ক : ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, বই-পুস্তক, ক্যালকুলেটর এবং ব্যাগ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

নিষিদ্ধ জিনিসপত্র পাওয়া গেলে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীনে অনুষ্ঠিত সব পরীক্ষায় তাকে অযোগ্য ঘোষণা করা হবে।

রোববার (২৪ ডিসেম্বর) পিএসসির নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) আ ই ম নেছার উদ্দিন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় মোবাইল ফোন, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, বই, ক্যালকুলেটর এবং ব্যাগসহ পরীক্ষা হলে প্রবেশে নিষিদ্ধ ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

প্রসঙ্গত, আগামী শুক্রবার ২৯ ডিসেম্বর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বিসিএস পরীক্ষার সময় হাতঘড়ি, পকেট ঘড়ি, ইলেকট্রনিক ঘড়ি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পরীক্ষার হলে প্রয়োজনীয় সংখ্যক দেয়াল ঘড়ির ব্যবস্থা থাকবে।

পরীক্ষা হলে কোনো প্রার্থীর কাছে মোবাইল ফোন, হাতঘড়ি, পকেটঘড়ি, ইলেকট্রনিক ঘড়ি, ইলেকট্রনিক ডিভাইস, বই-পুস্তক, ক্যালকুলেটর, ব্যাগ এবং নিষিদ্ধ সামগ্রী পাওয়া গেলে তা বাজেয়াপ্তসহ বিসিএস পরীক্ষা বিধিমালার বিধি ভঙের কারণে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিলসহ ভবিষ্যতে কমিশনের অধীনে অনুষ্ঠিত সব নিয়োগ পরীক্ষার জন্য তাকে অযোগ্য ঘোষণা করা হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

২৪টি ক্যাডারে দুই হাজার ২৪টি শূন্য পদে নিয়োগের জন্য গত ২০ জুন ৩৮তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কমিশন।

এবারের বিসিএসে বেশ কিছু পরিবর্তন রয়েছে। পরীক্ষার্থীরা যেন নিজেদের পছন্দ মতো উত্তর করতে পারেন সেজন্য বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমে প্রশ্ন করা হবে।

আর দুজন পরীক্ষক দিয়ে লিখিত পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হবে। দুই পরীক্ষকের মধ্যে ২০ শতাংশ নম্বরের পার্থক্য হলে তৃতীয় পরীক্ষকের মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে।

৩৮তম বিসিএসে ১৩টি সাধারণ ক্যাডারে ৫২০টি পদ, কারিগরি ও পেশাগত ক্যাডারে ৫৪৯টি, সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে ৯৫৫টি পদ রয়েছে।