মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ১২:১৮

কে হবেন রংপুর সিটির নগর পিতা?

Published : 2017-12-20 11:47:00

অনলাইন প্রতিবেদক : রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচন কাল । এ নির্বাচনী উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে রংপুর ছাড়িয়ে দেশজুড়ে । রাজনীতি প্রিয় মানুষ এখন তাকিয়ে আছেন এই নির্বাচনের দিকে । সবার মনে একটিই প্রশ্ন- কে হবেন রংপুরের নগরপিতা?। রংপুর বরাবরই ছিল এরশাদের জাপার ঘাঁটি । তবে দলটির এরশাদের ভাতিজা বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়েছে । এদিকে শাসক দল আওয়ামী লীগও এখানে বেশ শক্তিশালী । আর বিএনপি একসময় দুর্বল থাকলেও গত দশ বছরে ধীরে ধীরে অবস্থান বেশ শক্ত করে নিয়েছে ।

এর ফলে রসিক নির্বাচনে ত্রিমুখী লড়াই হবে । নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না, লড়াই শেষে মুকুট শোভা পাবে কার মাথায় ।  লড়াইয়ে রয়েছেন জাপার মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার, আওয়ামী লীগের মোশাররফ হোসেন ঝন্টুর নাকি বিএনপির কাওসার জামান বাবলার। 

 অটোরিকশাচালক রহমত গণমাধ্যমকে বলেন,  তার জন্ম রংপুরেই । দিনভর ভাড়া টেনে মানুষের সঙ্গে কথা বলে বুঝে গেছেন ভোটের হিসেব-নিকেশ । তিনি বললেন, ঝন্টু মানুষের কথাই শোনে না । লাঙলই এবার জিতবে । মানুষের মুখোত শোনেন । মানুষ তো বদলি চায় । নিজের সরল রায় দিলেন এই পঞ্চাশোর্ধ্ব অটোরিকশাচালক ।

তরুণ কামাল বলেন, নির্বাঝচনে জিতবে জন্টুই । তিনি রংপুরের জন্য কাজ করেছেন । চাকুরি জীবী হেমায়েত হোসেন বলেন, রংপুরের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে, জাতীয় পার্টি নয়, বরং সরকারি দলের কাউকে দরকার । নইলে রংপুরের উন্নয়ন থেমে থাকবে । সেটা নগরবাসীর জন্য ভালো কিছু হবে না । ধানের শীষ অবস্থা কেমন- জিজ্ঞেস করতেই হেমায়েতের উত্তর, নৌকা-লাঙলেই লড়াই হবে । রংপুরে বিএনপির সেই অবস্থা নেই । তবে জামায়াত আর বিহারি ভোটে এগিয়ে থাকবে এই দলটির প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা । 

শুরু থেকেই রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে একপেশে নির্বাচনের আভাস পাওয়া গেলেও শেষ মুহূর্তে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এগিয়ে আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে । গণসংযোগের শেষদিন গতকাল মঙ্গলবার তাদের মেয়রপ্রার্থীর পক্ষে শোডাউন করেছে দলটি । পার্থক্য গড়তে ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করতে পারেন জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থী এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার । শেষ মুহূর্তে জাতীয় পার্টির নির্বাচনী রিমোট কন্ট্রোল দলের চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের বাসভবন পল্লী নিবাসে এসে স্থির হয়েছে । ফলে জাতীয় পার্টির প্রার্থী লাঙল প্রতীক নিয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে । বিএনপিও বসে নেই । তাদের দাবি মূল ভোটযুদ্ধ হবে লাঙল, ধানের শীষের মধ্যে । এদিকে গতকাল মধ্যরাত থেকে প্রার্থীদের প্রচার শেষ হয়েছে। বড় তিন দলে চলছে ভোটের হিসাব-নিকাশ।
রসিক নির্বাচন প্রসঙ্গে জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি সাবেক অধ্যক্ষ রাকিবুল হাসান বুলবুল গণমাধ্যমকে বলেন, এবার জনবান্ধব প্রার্থীর জয়লাভ করার সম্ভবনা রয়েছে । যারা লাফালাফি করে ভোট চাইছে, জনগণ এমন প্রার্থীকে বর্জন করতে পারে । তবে এবারের ভোটে ৩৬ হাজার তরুণ ভোটার মেয়র নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি মনে করেন । রাকিবুল হাসান বুলবুল বলেন, আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি এই ৩ দলের প্রার্থীরই অবস্থান ভালো । এদের যে কেউই বিজয়ী হতে পারেন।