বুধবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ০১:১৪

বিরাট-আনুশকার বিয়ের অজানা তথ্য

Published : 2017-12-12 17:16:00, Updated : 2017-12-12 17:45:39

অনলাইন ডেস্ক : বিরাট কোহলি এবং আনুশকা শর্মার বিয়ের খবর নিয়ে সরগরম থেকে মিডিয়া পাড়া থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। রূপকথার মতো বিয়ে সারলেন ভারতের অন্যতম রোম্যান্টিক তারকা জুটি। দেখা নেয়া যাক বিরাট-আনুশকার বিয়ের অজানা কিছু তথ্য।

ইতালির রোম থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে তাস্কানির বর্গ ফিনোচ্চিয়েতো অঞ্চলে এই হাই প্রোফাইল বিয়ের অনুষ্ঠান করা হয়েছে। ইতালির ওয়াইন ক্যাপিটাল মন্টালসিনোর থেকে মাত্র কয়েক কিলোমিটার দূরে রয়েছে এই বর্গ ফিনোচ্চিয়েতো।

৮০০ বছরের পুরনো এই ভিলাটিতে রয়েছে ২২টি শয়নকক্ষ। ৪৪ জন অতিথি থাকতে পারেন এখানে। এই ভিলায় এক সপ্তাহ থাকার ভাড়া ১ কোটি টাকা। একএকটি ঘরের ভাড়া ৬ লক্ষ ৫০ হাজার থেকে শুরু করে ১৪ লক্ষ টাকার মধ্যে।

 

বিয়ের সমস্ত প্ল্যানিং করেছেন দিল্লির ওয়েডিং প্ল্যানার দেবিকা নারিন। বিয়ের সব ছবি তুলেছেন পৃথিবী বিখ্যাত ওয়েডিং ফটোগ্রাফার দেবিকার স্বামী জোসেফ রাধিক। দিল্লি বা মুম্বাইতে প্রতিদিনের শুটে তিনি সাধারণত পাঁচ লক্ষ টাকাপারিশ্রমিক নেন। দেশের বাহিরে হলে তার দ্বিগুণ পারিশ্রমিক নেন। এক্ষেত্রে বিয়ে হয়েছে ইতালির তাস্কানিতে। কেবল ছবি ও ভিডিওতে এ প্রায় দু’কোটি খরচ হয়েছে। বিরাট-আনুশকার বিয়ে ও বউভাতের সব ছবির এক্সক্লুসিভ রাইট বেচে দেওয়া হবে নির্দিষ্ট ম্যাগাজিন ও বিনোদন চ্যানেলকে। দু’কোটির অনেকটাই উঠে আসবে ওখান থেকে।

বিয়ের পর বউভাত হবে দিল্লির তাজ ডিপ্লোম্যাটিক এনক্লেভ-এ। রিসেপশনের নিমন্ত্রণপত্র ছাড়াও একটা মস্ত মিষ্টির বাক্স ও ড্রাই ফ্রুটসের ঝুড়ি উপহার দেওয়া হয়েছে। নিমন্ত্রণপত্রতে একটা ইউনিক QR Code আছে। সেটি স্ক্যান করা আবশ্যিক।

 

আনুশকার পোশাক ও গয়নার দ্বায়িত্বে ছিলেন কলকাতার বিখ্যাত ডিজাইনা সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়। সব্যসাচীর হেরিটেজ জুয়েলারি কালেকশন থেকে কেনা দশ লক্ষের হিরের নেকলেস পড়েছিলেন নায়িকা। আনকাট ডায়মন্ড, মাঝে চুনি ও নীচে মুক্তো বসানো। সঙ্গে একই রকম ঝুমকো। বিয়ের পোশাক ছিল গুলকন্দ বারগেন্ডি রঙের। কলকাতার শ্রেষ্ঠ কারিগরদের হাতে বোনা জরদৌসি ও মারোরি লেহেঙ্গা পরেছিলেন অনুষ্কা। লেহেঙ্গারজমিতে মুক্তোদানা বসানো।

বিরাট দিল্লির পাঞ্জাবি ছেলে। তার জন্য ছিল হাতে বোনা বেনারসি কাজের নক্সা করা শেরওয়ানি। যাতে গোলাপ কাঠের বোতাম লাগানো। সঙ্গে গোলাপি রঙের কোটা সিল্কের পাগড়ি। বুকে পিতলের ব্রোচ।  

 

পুরো বিয়ের অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় ছিল ‘শাদিস্কোয়াড’ নামক জনৈক সংস্থা। চার মাস ধরে প্ল্যানিং চলেছে। টপ বস ছাড়া বাকি সদস্যরা ঘুণাক্ষরেও টের পায়নি। সকলেই জানতেন বড়লোক কোনও ক্লায়েন্ট এর বিয়ে হবে বিদেশে। সেই মতো সেট ডিজাইন করা হয়।  প্রথম থেকেই ডেস্টিনেশন ওয়েডিংয়ের স্বপ্ন দেখেছিলেন আনুশকা। তাঁর ইচ্ছে ছিল, প্রকৃতির মাঝে বিয়ে করার। মূলত তাঁর ইচ্ছাতেই ইতালিতে গাঁটছড়া বাঁধলেন এই প্রেমিক জুটি।

দুর্দান্ত মেনু ছাড়া কী বিয়ে জমে? হাই প্রোফাইল এই বিয়ের খাবারের দায়িত্বে ছিলেন সেফ রিতু ডালমিয়া। রিতুর ‘চিত্তামানি’ রেস্তোরাঁর বেশ কিছু সিগনেচার পদ ছিল এলাহি মেনুর মধ্যে। ভারতীয় এবং ইতালিয়ান ডিশের ‘পারফেক্ট’ মেলবন্ধন ছিল তাঁদের বিয়ের মেনুতে।ছিল পোর্সিনি মাসরুম র‌্যাপড ইন বিকানেরি রুটি, স্টাফড রাভিওলি উইথ পনীরকুরচান। বেশ কিছু সাউথ ইন্ডিয়ান ডিশও ছিল। ডেসার্টের মধ্যে ছিল রাবড়ি।

 

হানিমুনে বিরাট-আনুশকা যাচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকায়। জানুয়ারি প্রথম সপ্তাহের পর কাজে ফিরবেন দু’জনেই। সূত্র: আনন্দবাজার