বুধবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮, দুপুর ০১:২০

মিয়ানমার নাগরিকদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন চলছে

Published : 2017-12-07 20:00:00
(ফাইল ছবি) অনলাইন ডেস্ক : কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭টি ক্যাম্পের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কাজ এগিয়ে চলছে। পাসপোর্ট অধিদপ্তর নিবন্ধন কাজ বাস্তবায়ন করছে।

বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) কুতুপালং -১ ক্যাম্পে ৮ শত ৩৬ জন পুরুষ, ১ হাজার ২ শত ১৭ জন নারী মিলে ২ হাজার ৫৩ জন, কুতুপালং-২ ক্যাম্পে ১ হাজার ১ শত ৫১ জন পুরুষ, ১ হাজার ৬ শত ৭৭ জন নারী মিলে ২ হাজার ৮ শত ২৮  জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ৬ শত ২৯ জন পুরুষ, ৭ শত ৮৬ জন নারী মিলে ১ হাজার ৪ শত ১৫ জন, থাইংখালী-১ ক্যাম্পে ১ হাজার ৪৬ জন পুরুষ, ১ হাজার ৬ জন নারী মিলে ২ হাজার ৫২ জন,  থাইংখালী-২ ক্যাম্পে ৭ শত ২৭ জন পুরুষ, ৬ শত ৩৩ জন নারী মিলে ১ হাজার ৩ শত ৬০ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ১ শত ২ জন পুরুষ, ১ হাজার ৪ শত ৬৩ জন নারী মিলে ২ হাজার ৫ শত ৬৫ জন, ঊনচিপ্রাং ক্যাম্পে ৬ শত ৩ জন পুরুষ, ৫ শত ৭৮ জন নারী মিলে ১ হাজার ১ শত ৮১ জন এবং পুরোদিনে ৭টি কেন্দ্রে মোট ১৩ হাজার ৫ শত ৪৫ জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে।

আজ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোট ৭ লাখ ৭৩ হাজার ২ শত ২৬ জনের নিবন্ধন করা হয়েছে।

সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক আজ পর্যন্ত ৩৬ হাজার ৩ শত ৭৩ জন এতিম শিশু শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ হাজার ৩ শত ৯৫ জন ছেলে এবং ১৮ হাজার ৯ শত ৭৮ জন মেয়ে। বাবা-মা কেউ নেই এমন এতিম শিশুর সংখ্যা ৭ হাজার ৭ শত ৭১ জন।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট মোতাবেক আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিক সংখ্যা ৬ লাখ ৩৭ হাজার ১ শত ৭০ জন। অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে। ২৫ আগস্ট ২০১৭ এর পূর্বে আগত মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ২ লাখ ৪ হাজার ৬০ জন।