রবিবার ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭, সকাল ০৮:২২

আনিসুল হকের মৃত্যুতে মন্ত্রিসভায় শোক প্রস্তাব

Published : 2017-12-07 15:57:00
বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: বাসস। অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ শোক প্রস্তাব করা হয়।

পরে আজ বিকেলে সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

তিনি বলেন, মন্ত্রিসভায় সদ্যপ্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়। তার শোকসন্তপ্ত পারিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে মন্ত্রিসভা।

সাংবাদিকদের মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, মন্ত্রিপরিষদ সভায় আনিসুল হকের আড়াই বছর মেয়র থাকাকালে সফল নানা উদ্যোগের কথা স্মরণ করে তার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেছে মন্ত্রিসভা।

উল্লেখ্য, লন্ডনে সাড়ে চার মাসেরও বেশি সময় ধরে চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ৩০ নভেম্বর বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা ২৩ মিনিটে (লন্ডন সময় বিকাল ৪টা ২৩ মিনিট) সেখানকার ওয়েলিংটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যু হয়। গত ২ ডিসেম্বর রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

২০১১ সালের ১ ডিসেম্বর ঐতিহ্যবাহী ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দু'ভাগ করার গঠিত হয় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ওই সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে মেয়র পদে নির্বাচন করেন তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী আনিসুল হক। বিপুল জনসমর্থন নিয়ে তিনি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব নেন। তিনিই ওই সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র।

আনিসুল হকের জন্ম নোয়াখালি জেলায় ১৯৫২ সালে। তার শৈশবের বেশ কিছু সময় কাটে তার নানাবাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০-এর দশকে টেলিভিশন উপস্থাপক হিসেবে তিনি জনপ্রিয়তা লাভ করেন। ১৯৯১ সালের নির্বাচনের পূর্বে বিটিভিতে শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়ার মুখোমুখি একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনও করেছিলেন তিনি।

এরপর ২০০৫ থেকে ২০০৬ সালে বিজিএমইএর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন এবং ২০০৮ সালে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। মোহাম্মদি গ্রুপ ও দেশ এনার্জি লি: এর কর্নধার তিনি।