শুক্রবার ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮, সকাল ০৯:৫৮

মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মেয়র আনিসুল হক

Published : 2017-12-02 20:58:00

অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশে ছেলের কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক। শনিবার (০২ ডিসেম্বর) বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশে ছেলের কবরে তাকে দাফন করা হয়। বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটের দিকে মেয়র আনিসকে বনানী কবরস্থানে আনা হয়। ৪টা ৫৫ মিনিটে মেয়রকে দাফনের জন্য কবরে নামানো হয়। এ সময় সেখানে এক বেদনাবিধূরর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। কান্নায় ভেঙে পড়েন সবাই।

কবরস্থানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও মেয়রের পরিবারের সদস্যরা ছিলেন। সেনা কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা মাহমুদুল হক দোয়া পরিচালনা করেন।

এর আগে দুপুরে আর্মি স্টেডিয়ামে তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান হাজারো রাজনৈতিক, পেশাজীবী ও সাধারণ জনতা। অশ্রুসিক্ত কণ্ঠে তারা মেয়রের প্রয়াণে অপূরণীয় ক্ষতির কথা বলেন।

স্টেডিয়ামে আনার আগে দুপুর ১টা ২০ মিনিটের দিকে বনানীর ২৩ নম্বর রোডের ৮০ নম্বরে নিজ বাসায় পৌঁছায় তার মরদেহ। এর আগে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে করে মরদেহ আসে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।

নাতির জন্ম উপলক্ষে গত ২৯ জুলাই রুবানা ও আনিসুল হক যুক্তরাজ্যে যান। সেখানে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৩ আগস্ট তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর থেকে হাসপাতালেই ছিলেন তিনি।

লন্ডনে সাড়ে চার মাসেরও বেশি সময় ধরে চিকিৎসাধীন থাকার পর ৩০ নভেম্বর বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা ২৩ মিনিটে লন্ডনের ওয়েলিংটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আনিসুল হকের মৃত্যু হয়।

১৯৫২ সালের ২৭ অক্টোবর ফেনী জেলার সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন আনিসুল হক। দাদার বাড়ি চট্টগ্রাম বিভাগের নোয়াখালী জেলার কবিরহাট উপজেলায়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন তিনি। বর্তমান সেনাপ্রধান আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক তার ছোট ভাই। স্ত্রী রুবানা হকসহ তিন সন্তানকে রেখে গেছেন তিনি।

উপস্থাপক হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন আনিসুল হক। পরবর্তীতে তৈরি পোশাক খাতের সফল ব্যবসায়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন তিনি। এরপর বিজিএমইএ, এফবিসিসিআই ও সার্ক চেম্বারের মতো ব্যবসায়ীদের সংগঠনগুলোর সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন তিনি।

আনিসুল হক ২০১৫ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী আনিসুল হকের রাজনীতিতে পা রাখাকে চমক হিসেবেই দেখেছিল সবাই। কিন্তু এক সময় সবাইকে চমকে দিয়েই নগরীর সফল মেয়র হিসেবে নগরবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছিলেন তিনি।