মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৫:৫৭

গৃহযুদ্ধের পর প্রথমবারের মতো নির্বাচনে নেপাল

Published : 2017-11-26 12:52:00, Updated : 2017-11-26 17:59:14

অনলাইন ডেস্ক : নেপালে গৃহযুদ্ধ অবসান এবং রাজতন্ত্রের পতনের পর এই প্রথমবারের মতো সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রথম দফায় রোববার (২৬ নভেম্বর) ৩২টি জেলায় এবং দ্বিতীয় দফায় আগামী ৭ ডিসেম্বর ৪৫টি জেলায় ভোট হবে। দেশটিতে ভোটারের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৫০ লাখ।

নেপালের জাতীয় নির্বাচনে মুখোমুখি লড়াই করবে দুটি জোট। শের বাহাদুর দেউবার নেতৃত্বে নেপাল কংগ্রেস পরিচালিত ‘গণতান্ত্রিক জোট’ বনাম কে পি অলির কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল (ইউএমএল) এবং পুষ্পকমল দাহালের ওরফে প্রচন্ডের নেতৃত্বাধীন কমিউনিস্ট পার্টি অব মাওয়িস্ট সেন্টারসহ বাম দলগুলোর মঞ্চ ‘বাম জোটে’র মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

নতুন সংবিধানের নিয়ম অনুযায়ী অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটিতে উল্লেখ্যযোগ্য রাজনৈতিক পরিবর্তনের আশা করা হচ্ছে। নেপালে নিরাপত্তা বাহিনী এবং মাওবাদীদের মধ্যে ১০ বছরের গৃহযুদ্ধ অবসানের পর কয়েক বছরব্যাপী আলোচনার ফসল দেশটির নতুন সংবিধান।

নির্বাচিত নতুন সরকারকে ২০১৫ সালের ভয়াবহ ভূমিকম্পে হওয়া ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। গৃহযুদ্ধ এবং ভূমিকম্পে নেপাল ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিগত ৯ বছরে নেপাল ১০ বারে ৯ জন প্রধানমন্ত্রীর অস্থায়ী শাসনে ছিল। এই নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটিতে স্থিতিশীলতা আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। দেশটির প্রায় ১ কোটি ৫০ লাখ ভোটার ২৭৫ সদস্য বিশিষ্ট পার্লামেন্ট নির্বাচন করবে। সূত্র: বিবিসি