রবিবার ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭, সকাল ০৮:৩১

বেপরোয়া আচরণ করছেন সৌদি যুবরাজ সালমান

Published : 2017-11-16 18:02:00

অনলাইন ডেস্ক : মার্কিন কর্মকতারা সৌদি যুবরাজ সালমানের আচরণকে 'বেপরোয়া' আখ্যায়িত করে বলেছে, এতে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ ক্ষুন্ন হতে পারে। বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ খরব জানানো হয়েছে।

মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর এবং গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাসহ কূটনীতিকরা বলছেন, যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান সম্ভাব্য পরিণতির ব্যাপারে চিন্তা না করেই বেপরোয়া আচরণ করছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) এ কথা জানান।

গত জুনে ৩২ বছর বয়সী ক্রাউন প্রিন্স সালমানকে তার বাবা কিং সালমান ক্ষমতার পরবর্তী উত্তরসূরি ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ‘বেপরোয়া’ হয়ে উঠছেন তিনি। গত ৪ নভেম্বর শুরু হওয়া দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযানে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্বাধীন কমিটি বেশ কয়েকজন প্রিন্স এবং ১১ জন কেবিনেট মন্ত্রী ৫ শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। অভিযান শুরুর পর দুজন সৌদি প্রিন্সের মৃত্যু নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়।

একইদিন সৌদি আরবে সফররত অবস্থায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি। পদত্যাগের জন্য দায়ী করা হয় ইরান এবং হিজবুল্লাহকে। হারিরির সৌদি আরবে অবস্থান নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। লেবানন সরকারের দাবি রিয়াদে হারিরিকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আটকে রাখা হয়েছে। হিজবুল্লাহ নেতা হাসান নাসরুল্লাহ বলেছেন সৌদি আরবের চাপে পড়েই হারিরি পদত্যাগ করেছেন।

সৌদি বিষয়ে মার্কিন কর্মকর্তা এবং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবস্থানে ভিন্নতা দেখা যাচ্ছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় বলেছেন, "সৌদি আরবের কিং সালমান ও ক্রাউন প্রিন্সের প্রতি আমার পূর্ণ আস্থা রয়েছে, তারা স্পষ্টভাবেই জানে তারা কী করছে। এদের কেউ কেউ তাদের দেশকে কয়েক বছর ধরে শোষণ করছে।" এতে স্পষ্টতই বোঝা যায়, পররাষ্ট্রনীতির প্রশ্নে ট্রাম্প আর মার্কিন প্রশাসনের অবস্থানে যথেষ্ট তারতম্য রয়েছে। সূত্র: আল-জাজিরা