সোমবার ২৩ অক্টোবর, ২০১৭, রাত ১১:১৮

লেখক সোহানা সাবা

Published : 2017-10-08 01:15:00, Updated : 2017-10-08 01:28:02, Count : 995
মাতৃত্ব ও নারীদের পরিবারিক কলহকে কেন্দ্র করে অভিনেত্রী সোহানা সাবা নিজ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন- ‘একটি মেয়ে যখন ঠিক করে তিনি মা হবেন, সেদিন থেকে তিনি মা হয়ে ওঠেন। যখন তিনি নিজের মধ্যে অন্য একটি প্রাণ-অস্তিত্ব অনুভব করেন, নিজের শরীরের পরিচিত আকার হারিয়ে নতুন অদ্ভুত আকারকে মেনে নেন। প্রতিদিনের কার্যকলাপ ভুলে নতুন রুটিনে অভ্যস্ত করে নেন নিজেকে। নিজের ক্যারিয়ারকে তুচ্ছজ্ঞান করে আগত সন্তানের জন্য। সন্তানের মুখটি না দেখেই 'মা'টি ‘মা’ হয়ে ওঠেন।

পাশের মানুষটি হয়তো ভবিষ্যত মায়ের পায়ে বেড়ি হিসেবে সন্তান চান। হয়ত বাচ্চা হবার পর মাকে বলেন- ‘ছিঃ তোমার শরীরের একি শেপ এখনও’! ওতোটুকু বাচ্চার বমি দেখে বাথরুমে বমি করতে ছুটে যান। হয়তো বাচ্চা ও মায়ের জন্ম ও রেগুলার খরচের কোনো মিনিমাম দায়িত্ব না নেন, তারপরও তিনি ‘বাবা’, কারণ তিনি স্পার্ম ডোনার?

তিন সপ্তাহ পর ১৫ মিনিটের জন্যে এক্স-শ্বশুরবাড়িতে এসে সেই সন্তানকে মনুমেন্ট বানিয়ে সেলফি তুলে মাসব্যাপী পোস্ট করাটুকুই কী বাবার দায়িত্ব? যেখানে মায়ের হাজারো অনিচ্ছা সন্তানের ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে পোষ্ট করা?

মা জীবনের হাজারো চাওয়া বিসর্জন দিয়ে পাখির পালকের মতো আগলে রাখেন সন্তানকে। কর্মক্ষেত্রে অপমান-অসন্তুষ্টি গিলে ফেলতে পারে মা চোখ বুজে সন্তানের মুখটি ভেবে। আর জীবন-যাপনের মায়ের সংগ্রামের গল্প আরেকদিন না হয় করবো। সে যা হোক, একটি বিড়াল, কুকুর কিংবা পাখিকে কখনো প্রমাণ দিতে হয় না যে সে বাচ্চার ‘যোগ্য মা’। তাদেরও নিজের ও সন্তানের খাবারের সন্ধানে সন্তানকে সেফ জোনে রেখে বেরোতে হয়।

আচ্ছা একটি বিড়াল, কুকুর কিংবা পাখিকে প্রমাণ দিতে হয় না সে যোগ্য মা। তাহলে কেন মানুষকে দিতে হয় প্রমাণ? কারণ তিনি মানুষ? কেনো বা যোগ্য বাবা না জেনেও, কোনো দায়িত্ব পালন করেনি জেনেও, সন্তানকে পাবে না জেনেও, বাবা সন্তান দাবি করবে? দুই কান তো আগেই গিয়েছে, চক্ষুলজ্জাও থাকে না লোকের? নাকি ‘সন্তানকে তো পাবেই না, চাইও না’ মাকে অপদস্ত করতে যাকে পৃথিবীতে এনেছিলাম- সেই হাতিয়ারটি কাজে লাগুক! এত অশান্তি পার করেও আমার টাকার গাছ কেন ভালো থাকবে?’ -এইটুকুই চাওয়া বাবার? তাতে হোক না সন্তানেরই ক্ষতি। মানুষ বলেই কি মাকে মা প্রমাণ দিতে হয়।’