বুধবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৫:৫০
ব্রেকিং নিউজ

■  ২০১৯ সালে বাংলাদেশে বেকারের সংখ্যা হবে ৩০ লাখ: আইএলও ■  রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বিলম্বের জন্য বাংলাদেশ দায়ী: মিয়ানমার ■  হবিগঞ্জে কৃষক হত্যায় একই পরিবারের ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড ■  পশুখাদ্য মামলায় ফের ৫ বছরের কারাদ্ণ্ড লালুপ্রসাদের ■  আ.লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না : জানালেন মোশাররফ ■  নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া নির্বাচন হবে না: হুশিয়ারি ফখরুলের ■  ২৯ জানুয়ারি ছাত্র ধর্মঘট ডেকেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট ■  চবিতে প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যের মিছিলে ছাত্রলীগের হামলা ■  ঢাবি উপাচার্যকে হেনস্তার ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি ■  আফগানিস্তানে ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’ কার্যালয়ে হামলা, নিহত ২ ■  ঢাবিতে অরাজকতা হতে দেওয়া হবে না: হুশিয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

মিজু আহমেদকে চোখের জলে বিদায় জানালেন চলচ্চিত্রপ্রেমীরা

Published : 2017-03-28 09:40:00

অনলাইন প্রতিবেদক : এফডিসিতে দ্বিতীয় জানাজায় পর অভিনেতা মিজু আহমেদকে চিরবিদায় জানান চলচ্চিত্রপ্রেমীরা। এফডিসিতে সহকর্মী ও ভক্তদের ফুল ও চোখের জলে সিক্ত হন মরহুম এ অভিনেতা। মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) সকালে পান্থপথের নিজ বাড়িতে প্রথম জানাজা শেষে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী প্রিয় কর্মস্থল এফডিসিতে এফডিসির জহির রায়হান কালারল্যাবের সামনে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয় এ অভিনেতাকে। এখানেই সম্পন্ন হয় তার নামাজে জানাজা। এরপর লাশ দাফনের জন্য নেওয়া হয় কুষ্টিয়ায়।

সোমবার (২৭ মার্চ) তার আকস্মিক মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে চলচ্চিত্র অঙ্গনে।
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অমিত হাসান জানান, মিজু ভাইয়ের দুটি জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে নয়টায় পান্থপথে (স্কয়ার হাসপাতালের বিপরীতে) তার অ্যাপার্টমেন্টের নিচে প্রথম নামাজে জানাজা হয়। এরপর তাকে নেওয়া হয় এফডিসিতে।

তিনি আরও জানান, এফডিসিতে জানাজা শেষে তার লাশ নেওয়া হয় গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ায়। সেখানেই তাকে সমাহিত করা হবে।

মিজু আহমেদ ১৯৫৩ সালের ১৭ নভেম্বর কুষ্টিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্ম নাম হচ্ছে মিজানুর রহমান। শৈশবকাল থেকে তিনি থিয়েটারের প্রতি খুবই আগ্রহী ছিলেন। পরবর্তী তিনি কুষ্টিয়ার স্থানীয় একটি নাট্যদলের সঙ্গে যুক্ত হন।

১৯৭৮ সালে তৃষ্ণা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি অভিনেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। কয়েক বছর পরে তিনি ঢালিউড চলচ্চিত্র শিল্পে অন্যতম সেরা একজন খলনায়ক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। এছাড়াও তিনি তার নিজের চলচ্চিত্র প্রযোজনা সংস্থা ফ্রেন্ডস মুভিজ এর ব্যানারে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেছেন।


তার অভিনীত ছবিগুলো মধ্যে হচ্ছে- তৃষ্ণা (১৯৭৮), মহানগর (১৯৮১), স্যারেন্ডার (১৯৮৭), চাকর (১৯৯২), সোলেমান ডাঙ্গা (১৯৯২), ত্যাগ (১৯৯৩), বশিরা (১৯৯৬), আজকের সন্ত্রাসী (১৯৯৬), হাঙ্গর নদী গ্রেনেড (১৯৯৭), কুলি (১৯৯৭), লাঠি (১৯৯৯), লাল বাদশা (১৯৯৯), গুন্ডা নাম্বার ওয়ান (২০০০), ঝড় (২০০০), কষ্ট (২০০০), ওদের ধর (২০০২), ইতিহাস (২০০২), ভাইয়া (২০০২), হিংসা প্রতিহিংসা (২০০৩), বিগ বস (২০০৩), আজকের সমাজ (২০০৪), মহিলা হোস্টেল (২০০৪), ভন্ড ওঝা ২(০০৬) ইত্যাদি।