বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর, ২০১৭, রাত ১২:১৯

তিশার শোকে ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ, চালকের বিরুদ্ধে মামলা

Published : 2017-09-13 23:37:00,
নিজস্ব প্রতিবেদক: মিরপুরের কাজীপাড়ায় বাসচাপায় তাসনিম আলম তিশা (১২) নিহত হওয়ার ঘটনায় গতকাল তার স্কুল মিরপুর গার্লস আইডিয়াল ল্যাবরেটরি ইনস্টিটিউটে সব ধরনের ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ ছিল। নিজ প্রতিষ্ঠানের পঞ্চম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রীর এমন মর্মান্তিক মৃত্যুতে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখে এভাবে শোক প্রকাশ করেন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।
অন্যদিকে স্কুলছাত্রীকে চাপা দেওয়ার ঘটনায় ঘাতক বাসের চালক আবদুর রহিমকে আসামি করে কাফরুল থানায় মামলা করেছেন তিশার বাবা খোরশেদ আলম।
তিশার স্কুলের অধ্যক্ষ ওসমান গণি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় তিশার অকাল মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। সে ছিল খুব মেধাবী। তার এই অকাল মৃত্যু কোনোভাবে মেনে নিতে পারছেন না শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তার প্রতি সমবেদনা জানিয়ে আমরা গতকাল স্কুলে সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখেছি। তবে অফিস খোলা ছিল।
তিনি বলেন, এই রুটের বাসগুলো বাস খুব বেপরোয়া গতিতে চলাচল করে।
ঘটনার সঙ্গে জড়িত চালকসহ সংশ্লিষ্ট সবার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানান তিনি।
কাফরুল থানার ওসি শিকদার মো. শামীম হোসেন জানান, ছাত্রীকে চাপা দেওয়ার ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে গত মঙ্গলবার রাতে বাসটির চালক আবদুর রহিমের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। এর আগে ঘটনার পরই বাসের যাত্রীরা ঘাতক চালককে আটক করে থানায় হস্তান্তর করে। তাকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে তিশাকে তার গ্রামের বাড়ি রংপুরের পীরগঞ্জে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার দুপুরে স্কুল শেষে মায়ের সঙ্গে বাসায় ফেরার পথে শেওড়াপাড়া ও কাজীপাড়ার মাঝামাঝি লাইফ এইড স্পেশালাইজড হাসপাতালের সামনের সড়কে রাস্তা পার হওয়ার সময় তেঁতুলিয়া পরিবহনের বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই নিহত হয় তিশা। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ সহপাঠী ও স্থানীয়রা শেওড়াপাড়া ও কাজীপাড়া সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। বিক্ষোভকারীরা ঘাতক বাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা প্রায় ১৫ মিনিট চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। ততক্ষণে বাসটি সম্পর্ণ পুড়ে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে স্থানীয়দের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করলে কয়েকটি বাস ভাঙচুর এবং পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে বিক্ষোভকারীরা। প্রায় দেড় ঘণ্টা পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় পুরো এলাকা অচল হয়ে পড়ে। দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পর জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেন বিক্ষোভকারীরা।

আরও খবর