মঙ্গলবার ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, সকাল ০৮:০৪

বাংলাদেশ-ভারতের পাঁচ রুটে বাস অপারেটর নিয়োগে স্থিতাবস্থা

Published : 2017-09-13 23:30:00, Count : 65
নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার পাঁচটি রুটে বাস চলাচলের জন্য অপারেটর (বাস মালিকপক্ষ) নিয়োগ দিতে দরপত্র আহ্বানের প্রক্রিয়ার ওপর এক মাসের জন্য স্থিতাবস্থা জারি করেছেন হাইকোর্ট। এক আবেদনের শুনানি নিয়ে গতকাল বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত অবকাশকালীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। ফলে পাঁচটি সড়কে বাস চলাচলের অপারেটর নিয়োগ সংক্রান্ত কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে না বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।
আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এবিএম আলতাফ হোসেন। সঙ্গে ছিলেন এ আর এম কামরুজ্জামান, অর্পণ চক্রবর্তী ও শুভজিত ব্যানার্জী। বিআরটিসির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. মনিরুজ্জামান।
এবিএম আলতাফ হোসেন বলেন, দরপত্র আহ্বান প্রক্রিয়ার ওপর এক মাসের জন্য স্থিতাবস্থা জারি করেছেন হাইকোর্ট। এ নিয়ে আর কোনো কার্যক্রম চালানো যাবে না।
রিটপক্ষে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী জানান, বাংলাদেশ থেকে ভারতের আন্তর্জাতিক বাস রুটে দুই দেশের সরকার সম্পাদিত প্রটোকলের শর্ত অনুযায়ী ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা রুটে নাশতাসহ ১১ ডলার (প্রায় ৯২০ টাকা) ভাড়া আদায়ের কথা থাকলেও সরকারি পরিবহন সংস্থা বিআরটিসিসহ সব বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ১৭০০ থেকে ২০০০ টাকা হারে ভাড়া আদায় করছে। এই বাস রুটটি চালুর পর ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাওয়ায় পরবর্তী সময়ে আগরতলা-ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা, ঢাকা-খুলনা-কলকাতা-ঢাকা, ঢাকা-আগরতলা-ঢাকা, ঢাকা-সিলেট-শিলং-গোয়াহাটি-ঢাকা রুটগুলো চালু হলে এসব রুটে এসি/নন-এসি বাসের ভাড়া নির্ধারিত না থাকায় বাস কোম্পানিগুলো ইচ্ছেমতো ভাড়া আদায় করছে। এজন্য আমরা হাইকোর্টে রিট আবেদন করি।