বুধবার ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৫:২৩

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের আপিল শুনানি ৮ মে

Published : 2017-03-07 13:31:00

অনলাইন প্রতিবেদক : :

অনলাইন প্রতিবেদক: বিচারপতিদের অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানি মুলতবি করেছেন আপিল বিভাগ। মঙ্গলবার (০৭ মার্চ) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে ৭ বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৮ মে পর্যন্ত তা মূলতবি করেন।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের হাতে রেখে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। সেই সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট।  এর বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগ ৭ মার্চ শুনানির জন্য দিন ঠিক করেন। এ মামলা শুনানিতে ১২ জন অ্যামিকাস কিউরির নাম ঘোষণা করা হয়।

১২ জন অ্যামিকাস কিউরি হলেন- টি এইচ খান, ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, আবদুল ওয়াদুদ ভুইয়া, ফিদা এম কামাল, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, এ এফ হাসান আরিফ, এ জে মোহাম্মদ আলী, আজমালুল হোসেন কিউসি ও এম আই ফারুকী।

২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী সংসদে পাস হয়। এতে বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নেয়া হয়। এই সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০১৪ সালের ৫ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের ৯ আইনজীবী হাইকোর্টে রিট করেন।

শুনানি শেষে ২০১৬ সালের ৫ মে হাইকোর্টের ৩ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতের ভিত্তিতে তা অবৈধ ঘোষণা করেন।  - See more at: http://www.shokalerkhobor24.com/details.php?id=63691#sthash.VUeHwv2M.dpuf
অনলাইন প্রতিবেদক: বিচারপতিদের অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানি মুলতবি করেছেন আপিল বিভাগ। মঙ্গলবার (০৭ মার্চ) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে ৭ বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৮ মে পর্যন্ত তা মূলতবি করেন।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের হাতে রেখে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। সেই সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট।  এর বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগ ৭ মার্চ শুনানির জন্য দিন ঠিক করেন। এ মামলা শুনানিতে ১২ জন অ্যামিকাস কিউরির নাম ঘোষণা করা হয়।

১২ জন অ্যামিকাস কিউরি হলেন- টি এইচ খান, ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, আবদুল ওয়াদুদ ভুইয়া, ফিদা এম কামাল, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, এ এফ হাসান আরিফ, এ জে মোহাম্মদ আলী, আজমালুল হোসেন কিউসি ও এম আই ফারুকী।

২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী সংসদে পাস হয়। এতে বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নেয়া হয়। এই সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০১৪ সালের ৫ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের ৯ আইনজীবী হাইকোর্টে রিট করেন।

শুনানি শেষে ২০১৬ সালের ৫ মে হাইকোর্টের ৩ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতের ভিত্তিতে তা অবৈধ ঘোষণা করেন।  - See more at: http://www.shokalerkhobor24.com/details.php?id=63691#sthash.VUeHwv2M.dpuf

বিচারপতিদের অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানি মুলতবি করেছেন আপিল বিভাগ। মঙ্গলবার (০৭ মার্চ) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে ৭ বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৮ মে পর্যন্ত তা মূলতবি করেন।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের হাতে রেখে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। সেই সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট।  এর বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগ ৭ মার্চ শুনানির জন্য দিন ঠিক করেন। এ মামলা শুনানিতে ১২ জন অ্যামিকাস কিউরির নাম ঘোষণা করা হয়।

১২ জন অ্যামিকাস কিউরি হলেন- টি এইচ খান, ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, আবদুল ওয়াদুদ ভুইয়া, ফিদা এম কামাল, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, এ এফ হাসান আরিফ, এ জে মোহাম্মদ আলী, আজমালুল হোসেন কিউসি ও এম আই ফারুকী।

২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী সংসদে পাস হয়। এতে বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নেয়া হয়। এই সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০১৪ সালের ৫ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের ৯ আইনজীবী হাইকোর্টে রিট করেন।

শুনানি শেষে ২০১৬ সালের ৫ মে হাইকোর্টের ৩ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতের ভিত্তিতে তা অবৈধ ঘোষণা করেন।