সোমবার ২৩ অক্টোবর, ২০১৭, রাত ১১:১৯

একজন নিশী মং ও 'জ্ঞানশ্রী মহাথেরো পাঠাগার'

Published : 2017-08-12 19:44:00, Count : 1541
নিশী মং মারমার প্রিয় লেখক আনিসুল হকের কাছ থেকে কিশোর অালো ম্যাগাজিন এবং হাসির গল্প সমগ্র বইটি পাঠাগারের জন্য অনুদান নিচ্ছেন। ছবিটি ফেসবুক থেকে সংগৃহীত। মোঃ জোবায়ের হোসেন : নিশী মং মারমা। বান্দরবান শহর থেকে ৬২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত থানচির বলিপাড়া ইউনিয়নে বাড়ি। জেলার থানচি ও রোমাতে পড়াশুনা করে ছোটকাল কাটিয়েছেন। ২০১২ সালে রাজধানী ঢাকায় এসে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হন দেশের অন্যতম সেরা নটরডেম কলেজে। সেখানে তার বাংলা উচ্চারণ ও ভাষার দক্ষতা নিয়ে বন্ধুরা তার সাথে মজা নেয়া শুরু করে। আর তখনই একটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী নিশী মং মারমা নিজ উদ্যোগেই বান্দরবান জেলার থানচি উপজেলার বলিপাড়ায় গড়ে তুলেছেন একটি লাইব্রেরি 'জ্ঞানশ্রী মহাথেরো পাঠাগার'।

আদিবাসী গোষ্ঠীর শিশুরা, ধর্মীয়ভাবে সংখ্যালঘু পরিবারের সন্তানেরা অথবা শারিরীক ও মানসিকভাবে প্রতিবন্ধী শিশুরাও শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত। আর এসব সুবিধাবঞ্চিত আদিবাসী শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতেই তার এই উদ্যোগ।

এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, আমি যে সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি আমার পরবর্তী প্রজন্ম যারা পড়াশুনা করবে তারা যেন এই সমস্যার মুকোমুখি না হয় সে জন্যে আমার এলাকার ছেলে-মেয়েদের শিক্ষা বিস্তারে বা জ্ঞান বিকাশে সহায়ক হিসেবে আমরা একটি লাইব্রেরি স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

তিনি আরও বলেন, এ রকম এক দুর্গম এলাকায় লাইব্রেরি স্থাপনের বিষয়টি যথেষ্ট কঠিন, কিন্তু অসম্ভব ব্যাপার নয়। আমাদের এই স্বপ্নটি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে আমাদের পাশাপাশি চাই আপনাদেরও অকুণ্ঠ সমর্থন।

প্রসঙ্গত, এখন পর্যন্ত এই পাঠাগারটিতে সংগৃহীত বইয়ের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৮৭৪টি, ম্যাগাজিনের সংখ্যা ৭৫টি ও অনুদানকৃত আর্থিক পরিমাণ রয়েছে ৮ হাজার ৫০০ টাকা।

শারীফ আনির্বাণের পরিচালনা, আব্দুর রাকিবের নির্দেশনা, অনুপম দত্তের চিত্রগ্রহণ ও অর্ণব প্রধানের সম্পাদনায় নিশী মং মারমার এই স্বপ্নের কথা শুনুন এই ভিডিওতে: