মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, রাত ০৪:১১

যমজ চার ভাইয়ের সপ্তম জন্মদিন উদযাপন

Published : 2017-07-25 23:37:00
ইমরান হোসেন সুজন, নবাবগঞ্জ: ঢাকার নবাবগঞ্জের ছোট বক্সনগর গ্রামে সাত বছর আগে একসঙ্গে জন্ম হয় চার শিশুর। গতকাল তাদের সপ্তম জন্মদিন পালন করা হয়েছে। ঘটনাটি সেই সময় আলোড়ন তোলে। হয় বিভিন্ন পত্রিকার শিরোনাম। খবর পড়ে ওই চার শিশুর ব্যাপারে মানুষের কৌতূহল জেগেছিল। তাদের নিয়ে এখনও অনেক পাঠকের মনে কৌতূহল রয়েছে। কেমন আছে যমজ সেই চার শিশু?
ঘটনা ২০১০ সালের ২৫ জুলাইয়ের। সেদিন ছোট বক্সনগর গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী আরিফুর রহমানের স্ত্রী সেলিনা রহমান চার ছেলের জন্ম দেন। শিশুরা গর্ভে আসার দেড় মাসের মধ্যে সেলিনা রহমান বুঝতে পারেন তার জীবনে অস্বাভাবিক কিছু ঘটতে যাচ্ছে। আলট্রাসনোগ্রামের মাধ্যমে জানতে পারেন গর্ভে চারটি সন্তান। সেলিনার চাচাতো ভাই ডা. রফিকুলের পরামর্শে প্রসবের চার-পাঁচ মাস আগে উন্নত চিকিত্সার জন্য তাকে ঢাকা নেওয়া হয়। পরবর্তীতে সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পৃথিবীর আলো দেখে চার শিশু। ইসলামের প্রধান চার খলিফার নামের সঙ্গে মিল রেখে চার শিশুর নাম রাখা হয়-আবু বকর ফারদিন, ওমর ফারুক আদিয়াত, ওসমান গণি আরিয়ার ও আলী আরিফিন সায়ান।
একটি শিশুকে লালন-পালন করতে যেখানে একটি পরিবারকে হিমশিম খেতে হয়, সেখানে চারটি শিশুকে একসঙ্গে লালন-পালন করা কষ্টসাধ্যই। তবে সবার প্রচেষ্টায় এই কষ্টকে জয় করেছে পরিবারটি। দীর্ঘ পাঁচ বছর নানাবাড়ি নতুন বান্দুরা থেকে সুস্থভাবে
বেড়ে উঠেছে চার শিশু। এরই মধ্যে দেখতে দেখতে সাতটি বছর পার করে ফেলেছে ওরা।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ভালো রয়েছে চার শিশু। চারজনই দূরন্ত স্বভাবের। চারজনই স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্ডেনে নার্সারিতে পড়ে। এদের মধ্যে আবু বকর ফারদিন সবচেয়ে মেধাবী। সে প্রতিবার পরীক্ষায় প্রথম হয়। চার ভাইয়ের মধ্যে সে সবচেয়ে মিশুক। এ ছাড়া খাবারের ব্যাপারে ফারদিন কিছুটা দুর্বল। ওমর ফারুক আদিয়াত মাঝে মাঝে অসুস্থ হলেও নাচ-গান করতে ভালোবাসে। অন্যদিকে একই চেহারার অধিকারী দুজন ওসমান গণি আরিয়ার ও আলী আরিফিন সায়ান একটু বেশিই চঞ্চল! চার ভাইয়ের মধ্যে সব সময় খুঁটিনাটি নিয়ে ঝগড়া লেগে থাকলেও নিজেদের ব্যাপারে ওরা এক।
চার ভাইয়ের মা সেলিনা রহমান বলেন, ওদের নিয়ে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। এখন ওরা বড় হচ্ছে আমারও চিন্তা বেড়ে যাচ্ছে। কোথায় যায়, কী করে-এসব নিয়ে সারাদিন চিন্তায় থাকতে হয়। তবে ওরা দেশবাসীর দোয়ার ভালো আছে, সুস্থ আছে। ছেলেদের জন্মদিন উপলক্ষে সবার দোয়া কামনা করেন তিনি।
চার সন্তানের বাবা আরিফুর রহমান বলেন, আমি প্রবাসে থাকি। সব সময় চিন্তায় থাকি ওরা কী করছে। তবে সবার দোয়ায় ওরা ভালো আছে। সবাই দোয়া করবেন, ওরা যেন মানুষের মতো মানুষ হয়ে দেশের সেবা করতে পারে।