মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, সকাল ০৮:০৭

আমদানি শুল্ক কমেছে: চালের দাম কমছে না কেন?

Published : 2017-07-08 22:34:00
বেশ কিছুদিন থেকে চালের বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এই অস্থিরতা দূর করে চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সরকার চালের আমদানি শুল্ক ২৮ শতাংশ থেকে নামিয়ে ১০ শতাংশ করেছে। সরকার আশা করেছিল, আমদানি শুল্ক কমানোর ফলে কেজিপ্রতি চাল অন্তত ছয় টাকা কমবে। কিন্তু বাস্তবে তা কমেছে সামান্যই।
শুল্ক কমানোর পর ভারত থেকে বড় চালানের চাল দেশে এসেছে কিন্তু রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ বাজারে এখনও সব ধরনের চালই বিক্রি হচ্ছে আগের মতো চড়া দামে। এর কারণ হিসেবে চাল ব্যবসায়ীরা কয়েকটি কারণ উল্লেখ করছে। তারা বলছে, আমদানি করা চাল এখনও খুচরা পর্যায়ে পৌঁছায়নি। এছাড়াও চালের আমদানি শুল্ক কমানোর খবর পেয়ে ভারত রফতানি শুল্ক বাড়িয়ে দিয়েছে। চাল ব্যবসায়ীরা বলছে, বিদেশ থেকে মোটা চাল আমদানি করা হচ্ছে। মধ্যমান বা উন্নতমানের চালের দাম কমার কোনো সম্ভাবনা এখনও দেখা যাচ্ছে না। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছে, তারা এখনও আমদানি করা চাল বিক্রি শুরু করতে পারেনি। তাদের হাতে বেশি দামে আমদানি করা চাল এখনও রয়ে গেছে। এগুলো শেষ হলে আমদানি করা নতুন চাল কম দামে বিক্রি করা যাবে।
চালের দাম স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়ে গেলে মানুষের কষ্ট হয়। বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, মোটা চালের দাম ৪০ টাকার ওপরে গেলেই সাধারণ গরিব মানুষের কষ্ট বেড়ে যায়। এ ধরনের পরিস্থিতিতে সরকার প্রতি বছর খোলাবাজারে বিক্রি (ওএমএস) কার্যক্রম হাতে নেয়। কিন্তু খাদ্য অধিদফতরের গুদামে চাল সঙ্কটের কারণে ওএমএসসহ বেশিরভাগ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সরকার খাদ্য নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলার জন্য নির্দিষ্ট মূল্যে ধান-চাল সংগ্রহ করে থাকে। এই নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলতে গিয়ে সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কোনো সমস্যা তৈরি হলে অর্থাত্ সরকারের খাদ্যগুদামে মজুদ কমে গেলে অনেক সময়ই ব্যবসায়ীরা এর সুযোগ নিয়ে থাকে। সরকারি ভাষ্য হচ্ছে, দেশে এমন কোনো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি যে, চালের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাবে। বাজার বিশ্লেষকরা বারবারই বলে আসছেন, দেশে চাল সঙ্কট তৈরির জন্য কারসাজির আশ্রয় নেয় একশ্রেণির মিল মালিক। তাদের কাছে পর্যাপ্ত ধান-চাল থাকার পরও সিন্ডিকেট করে তারা চাল বাজারে ছাড়ে। দেশে বর্তমানে চালের দাম নিয়ে যে অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে, এর জন্য সিন্ডিকেট কতটা দায়ী, এ বিষয়টি তলিয়ে দেখা দরকার। যারা জড়িত আছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। ভারত থেকে বড় চালানের চাল দেশে আসার পরও চালের দাম কেন কমছে না তা তদারকি করে দেখা আবশ্যক। কোন মহলের কারসাজিতে সরকারের সদিচ্ছার প্রতিফলন চালের বাজারে না পড়াটা দুঃখজনক। আমরা এ পরিস্থিতির দ্রুত অবসান চাই।