মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, বিকাল ০৫:৩৯

মোহাম্মদ ফরহাদের জন্ম

Published : 2017-07-04 22:09:00
রাজনীতিক মোহাম্মদ ফরহাদের জন্ম ১৯৩৮ সালের ৫ জুলাই, পঞ্চগড় জেলার বোদায়। ১৯৬১ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। দিনাজপুরে সুরেন্দ্রনাথ কলেজে অধ্যয়নকালে মোহাম্মদ ফরহাদ সাহিত্যপাঠ ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে বামপন্থী আন্দোলনের প্রতি আকৃষ্ট হন। ১৯৬২ সালে আইয়ুববিরোধী ছাত্র-আন্দোলনের অন্যতম রূপকার ছিলেন তিনি। এখান থেকে সূচিত হয় জাতীয় রাজনৈতিক অঙ্গনে তাঁর প্রতিষ্ঠা।
মোহাম্মদ ফরহাদ কিছুকাল দৈনিক সংবাদ-এ কাজ করেন। কিন্তু রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য সাংবাদিকতা পেশায় স্থিত হতে পারেননি। তাঁর সাংগঠনিক নেতৃত্বে ছাত্রসংগঠন ছাত্র ইউনিয়ন দ্রুত বিকশিত হতে থাকে। ছাত্র আন্দোলন, নারী আন্দোলন ও ট্রেড ইউনিয়ন কার্যক্রম প্রসারে তাঁর ছিল মুখ্য ভূমিকা। প্রবীণ প্রজন্মের ত্যাগী নেতা এবং নতুন প্রজন্মের নবীন কর্মীদের মধ্যকার সেতুবন্ধ ছিলেন মোহাম্মদ ফরহাদ। ১৯৬৮ সালে পার্টির প্রথম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন।
একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে গঠিত কমিউনিস্ট পার্টি-ন্যাপ-ছাত্র ইউনিয়নের সম্মিলিত গেরিলা বাহিনীর অধিনায়ক ছিলেন ফরহাদ। ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত পার্টির দ্বিতীয় কংগ্রেসে তিনি সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। কিন্তু ১৯৭৭ সালে সরকার কমিউনিস্ট পার্টিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। ১৯৮০ সালের মার্চে নিম্ন বেতনভুক সরকারি কর্মচারীদের আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে তত্কালীন সরকার তাঁকে গ্রেফতার করে এবং রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে মামলা শুরু করে। ১৯৮১ সালের আগস্টে সুপ্রিমকোর্টের এক আদেশবলে তিনি মুক্তি পান। এরশাদের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে ১৫ দল ও ৭ দলের যুগপত্ কর্মসূচি প্রণয়ন ও আন্দোলন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে মোহাম্মদ ফরহাদের ছিল বিশেষ ভূমিকা। ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে ১৫ দলীয় প্রার্থী হিসেবে তিনি জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। মোহাম্মদ ফরহাদ স্বনামের চেয়ে বেনামেই বেশির ভাগ রাজনৈতিক নিবন্ধ লিখেছেন। তাঁর একমাত্র প্রকাশিত গ্রন্থ উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান।
১৯৮৭ সালের ৯ অক্টোবর মোহাম্মদ ফরহাদের প্রয়াণ ঘটে।