সোমবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, 7:58
খাবারদাবার
স্বাদের সঙ্গে গুণও থাকুক অটুট
Published : Wednesday, 11 January, 2017 at 10:53 AM, Count : 272
সৈয়দা সালিহা সালিহীন সুলতানা: শীতকালে বিভিন্ন রঙিন যেমন-হলুদ, কমলা, সাদা, লাল, বেগুনি ও সবুজ বর্ণের শাক-সবজি প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এই সময়ে প্রাপ্ত তাজা যেকোনো সবজিই শিশুদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। বিশেষ করে গাজর, মটরশুঁটি, বিট, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলা, শিম, শালগম, লাউ, শাক-পাতা ইত্যাদি।
এই সবজিগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ও মিনারেলস পাওয়া যায়। এ ছাড়া প্রচুর পরিমাণে খাদ্য আঁশ বা ডায়াটারি ফাইবার, বিভিন্ন ধরনের পিগমেন্টস, ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। কোনো কোনো সবজি যেমন-মটরশুঁটি ও বিচিসহ শিম থেকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রোটিনও পাওয়া যায়।
শিশুদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় বিভিন্ন ধরনের তাজা রঙিন সবজি ও শাক-পাতা থাকা উচিত। বিশেষ করে গাজর, শিম, লাউ, শালগম, মটরশুঁটি, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বিট, মুলা, বিভিন্ন ধরনের শাক-পাতা ইত্যাদি। এতে করে বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেলস ও ফাইবারের ঘাটতি দূর হবে। বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ফাইটোনিউট্রিয়েন্টের উপকারিতাগুলো পাওয়া যাবে।

পুষ্টিগুণ নষ্টের কারণ
বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি আমরা বিভিন্ন পদ্ধতিতে রান্না করে খাই। পুষ্টিগুণ অটুট রেখে রান্না করতে হলে প্রথমে জানতে হবে কীভাবে পুষ্টি উপাদানের অপচয় ঘটে বা পুষ্টিগুণ নষ্টের কারণ কী?
১. শাক-সবজি কাটার পর ধুয়ে ফেললে এতে থাকা বিভিন্ন ভিটামিন ও মিনারেলস পানির সঙ্গে ধুয়ে যায়, ফলে পুষ্টিগুণও কমে যায়।
২. রান্নার সময় দীর্ঘ সময় উচ্চ তাপে রান্না করলে পুষ্টি উপাদানের অপচয় ঘটে।
৩. পাত্রের ঢাকনা খুলে রান্না করলেও পুষ্টিমূল্য কমে যায়।
৪. শাক-সবজি খুব বেশি সিদ্ধ করলেও পুষ্টিগুণ কমে যায়।
৫. রান্না করা শাক-সবজি বারবার জ্বাল দিলে স্বাদ ও পুষ্টিমূল্য উভয়ই কমে যায়।
৬. রান্না করার পর দীর্ঘ সময় রেখে দিলেও পুষ্টিগুণ কমে যায়।

পুষ্টিগুণ ঠিক রেখে রান্নার উপায়
যেকোনো শাক-সবজি খুব বেশি সিদ্ধ করলে বা অধিক তাপে অনেক সময় ধরে রান্না করলে অথবা রান্না করা সবজি বারবার জ্বাল দিলে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন নষ্ট হয়ে যায়। পুষ্টিগুণ অটুট রাখতে বা সর্বোচ্চ পরিমাণে পাওয়ার জন্য শাক-সবজি কাটার আগেই ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে এবং কাটার পর শাক-সবজি ধোয়া ঠিক হবে না। কাটার পর দীর্ঘ সময় আলো-বাতাসের সংস্পর্শে থাকলে পুষ্টিগুণ কমে যায়। তাই শাক-সবজি কাটার পর যত দ্রুত সম্ভব পাত্রের ঢাকনা দিয়ে অল্প সময়ে রান্না করতে হবে। এ ছাড়া শাক-সবজি খুব বেশি সিদ্ধ না করাই ভালো। রান্নার পর বারবার জ্বাল না দিয়ে দ্রুত খেয়ে ফেলা উচিত।

শিশুকে কীভাবে খাওয়াবেন
মায়েরা শীতের এ সময়ে বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি দিয়ে তৈরি মুখরোচক নানা ধরনের খাবার শিশুদের খাওয়াতে পারেন। যেমন : সবজি-পাকোড়া, সবজি-চিকেন সুপ, সবজি-কাটলেট, ডিম-সবজির চপ, বিভিন্ন ধরনের ডাল-শাকের বড়া, মিশ্রিত সবজির নিরামিষ বা ঘণ্ট, সবজি-পরাটা, সবজি-পিত্জা, সবজি-সালাদ, সবজি-নুডলস, মাছ বা মাংস দিয়ে রান্না সবজির কারি ইত্যাদি।
কিছু সবজি কাঁচাই খাওয়া যায়, যেমন- গাজর, শসা ইত্যাদি। এগুলো খাওয়ার আগে পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে খুব ভালো করে ধুয়ে ময়লা পরিষ্কার করে নিতে হবে। এরপর ওপরের পাতলা খোসা ছিলে তারপর কেটে বা সালাদ করে খাওয়া যায়। মনে রাখতে হবে, শরীর সুস্থ রাখতে হলে শিশুকাল থেকেই পর্যাপ্ত পরিমাণে বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে এবং প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় অবশ্যই থাকতে হবে।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : কমলেশ রায়
প্রকাশক রোমো রউফ চৌধুরী কর্তৃক সকালের খবর ভবন (৮ম ও ৯ম তলা), ২৫ কমরেড মনি সিংহ সড়ক (৬৮ পুরানা পল্টন), ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত।, দৈনিক সকালের খবর পাবলিকেশনস লিমিটেড, ১৫৩/৭ তেজগাঁও বা/এ, ঢাকা-১২০৮ হতে মুদ্রিত, সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক দফতর : ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক সকালের খবর, ২০১৬
ফোন : +৮৮-০২-৮১৭০৫৬৮-৭০, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৮১৭০৫৭২
ই-মেইল : Print : dsknews@shokalerkhabor.com, Online : onlinenews@shokalerkhabor.com